রাজ্য

Madan-Partha: ‘মদন, তুমি কিন্তু বাইরে মুখ খুলবেনা’, তৃণমূলের অন্দর থেকে মদন মিত্রের উদ্দেশ্যে জারি হল কড়া ফরমান, সৌজন্যে পার্থ চট্টোপাধ্যায়!

গত দু’দিন ধরে তৃণমূল সংবাদ শিরোনামে আছে নিজেদের দলীয় কোন্দলের কারণে। বেশ কয়েকদিন আগেও শ্রীরামপুরের সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এর বিরুদ্ধে বেশ কিছু কথা বলেন। যার পরিপ্রেক্ষিতে গোটা রাজ্যের তৃণমূল কর্মীরা কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে রে রে করে তেড়ে উঠেছেন। রিষড়া শহর জুড়ে কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় এর বিরুদ্ধে পড়েছে পোস্টার। দলের অন্যতম শীর্ষ নেতা কুনাল ঘোষ এবং আরামবাগের তৃণমূল সাংসদ রিষড়ার বাসিন্দা অপরূপা পোদ্দারও কল্যাণের বিরুদ্ধে মুখ খুলেছেন। থেমে থাকেননি মদন মিত্রও। তিনিও দু’কথা শুনিয়ে দিয়েছেন কল্যাণকে।

এ নিয়ে দলের শৃঙ্খলা রক্ষা কমিটির প্রধান পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেছিলেন যে, যাই অসন্তোষ হবে তা দলের মধ্যে জানাতে। এদিকে মদন মিত্র গতকাল ফেসবুক লাইভে এসে বলে ফেলেছেন যে তৃণমূল ভবনে কোন অভিযোগ জানাতে গেলে সুব্রত বক্সী ছাড়া কাউকে পাওয়া যায় না। তার এই মন্তব্যের পরেই মুখে পুড়েছে শাসক দলের। তাই এবার তৃণমূলের মহাসচিব তথা শৃঙ্খলা রক্ষা কমিটির প্রধান পার্থ চট্টোপাধ্যায় ফোন করে মদন মিত্রকে কড়া হুঁশিয়ারি দিলেন।

‘সমস্যা থাকলে দলের ভিতরে বলুন’, মদন মিত্রকে ফোন করে বললেন দলের মহাসচিব। অন্তত এমনটাই খবর মিলেছে তৃণমূল সূত্রে। কামারহাটির বিধায়ককে বলা হয়েছে যে যদি দলের বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ থাকে তাহলে তা দলের মধ্যেই জানাতে। এভাবে ফেসবুকে সকলের মধ্যে প্রকাশ্যে না আনতে,এতে দলের শৃঙ্খলা ভঙ্গ হচ্ছে।

এই পার্থ চট্টোপাধ্যায় সঙ্গে যখন একটি বেসরকারি সংবাদমাধ্যম যোগাযোগ করে তখন তিনি বলেন যে, তিনি গোটা ঘটনাটিকে সতর্ক করা হিসেবে দেখছেন না। তিনি বলছেন যে আমি যা বলেছি ওকে বুঝিয়ে বলেছি। যদিও মদন আছেন মদন মিত্র তেই।সেই বেসরকারি সংবাদমাধ্যমকে পাল্টা সাক্ষাৎকারে মদন মিত্র বলে দিয়েছেন,’মেরা নাম হি কাফি হে, যাহা মে খাড়া হো যাতা হু, ওয়াহিসে লাইন শুরু হোতা হে।’

Related Articles

Back to top button