রাজ্য

বিশেষভাবে সক্ষম মহিলাকে তুলে নিয়ে গিয়ে ধ’র্ষ’ণ পিংলায়, অভিযুক্ত তৃণমূল নেতাকে গ্রেফতার করল পুলিশ

রাজ্যে ঘটে চলেছে একের পর এক ধ’র্ষ’ণের ঘটনা। হাঁসখালি ধর্ষণকাণ্ড নিয়ে এখনও রাজ্য উত্তাল হয়ে রয়েছে। এরই মধ্যে খবর মেলে যে গত সোমবার রাতে পিংলার কালুখাঁড়া এলাকার বিশেষভাবে সক্ষম এক মহিলাকে তুলে নিয়ে গিয়ে ধ’র্ষ’ণ করা হয়। এই ঘটনায় অভিযোগ তোলা হয় ওই এলাকার তৃণমূল পঞ্চায়েত সদস্যের বিরুদ্ধে।

নির্যাতিতার পরিবারের দাবী, এদিন রাতেই ওই এলাকায় বসেছিল সালিশি সভা। সেখানে এই নির্যাতিতার পরিবারকে চাপ দেওয়া হয় যাতে বিষয়টি মিটিয়ে নেওয়া হয়। পরবর্তীতে মেদিনীপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নির্যাতিতার স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হয়। এরপরই অভিযোগ দায়ের করা হয় ইমেলের মাধ্যমে।

বিজেপির দাবী, নির্যাতিতা অভিযোগ জানাতে গেলে তাঁকে তিন ঘণ্টা থানায় বসিয়ে রাখা হয়। এমনকি, ধ’র্ষ’ণ শব্দটি সরিয়ে পাশবিক অত্যাচার না লেখা পর্যন্ত অভিযোগও দায়ের করা হচ্ছিল না বলে দাবী। এই ঘটনায় ঘাটাল সাংগঠনিক জেলা বিজেপি সভাপতি তন্ময় দাস এই ঘটনার সঠিক তদন্ত ও দোষীদের শাস্তির দাবী তোলেন।

জানা যায়, গতকাল, মঙ্গলবার নির্যাতিতার মা মেদিনীপুর কোতোয়ালি থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। এরপর জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তৃণমূলের পঞ্চায়েত সদস্য অভিযুক্ত অভিজিৎ মণ্ডলকে আটক করে পুলিশ। এদিন রাতেই তাঁকে গ্রেফতার করা হয়।

আজ, বুধবার সকালে কালুখাঁড়া গ্রামে গেলে দেখা যায় যে এই ঘটনা নিয়ে স্থানীয়রা মুখ খুলতে রাজি নন। নির্যাতিতার দিদি জানান যে সালিশি সভায় যে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে তা তিনি মেনে নিচ্ছেন। তবে যে অভিযোগ করা হয়েছে, তা সত্যি। গোটা এলাকায় থমথমে পরিবেশ। ক্যামেরা দেখলেই দূরে চলে যাচ্ছে লোকজন, এমনটাও জানা গিয়েছে। সূত্রের খবর, আজ, বুধবারই অভিযুক্ত তৃণমূল নেতাকে আদালতে তোলা হবে। পিংলা থানার পুলিশ এও জানিয়েছে যে আদালতে নির্যাতিতার গোপন জবানবন্দিও নেওয়া হবে।

Related Articles

Back to top button