রাজ্য

বিজেপি নেতার রহস্যমৃত্যুতে চাঞ্চল্যকর মোড়! ‘খুন হয়নি’, গলায় ফাঁস লাগার কারণেই মৃত্যু অর্জুন চৌরাসিয়ার, বলছে ময়নাতদন্তের রিপোর্ট

কাশীপুরের বিজেপি নেতা অর্জুন চৌরাসিয়ার মৃত্যু নিয়ে গোটা রাজ্যে ধুন্ধুমার কাণ্ড। এরই মধ্যে সামনে এল অর্জুনের ময়নাতদন্তের রিপোর্ট যা এই ঘটনাকে অন্যদিকে চালিত করতে পারে। এতদিন পর্যন্ত বিজেপির ইয়রফে দাবী উঠেছিল যে তাদের নেতাকে খুন করা হয়েছে। কিন্তু এবার ময়নাতদন্তের রিপোর্ট বলছে অন্য কথা।

আদালতে পেশ করা ময়নাতদন্তের রিপোর্ট অনুযায়ী, খুন করার পর অর্জুনের দেহ ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে, এমন তথ্য অপ্রাসঙ্গিক। বরং রিপোর্টে বলা হয়েছে যে গলায় ফাঁস লাগার কারণেই মৃত্যু হয়েছে অর্জুনের। আজ, মঙ্গলবার আলিপুর কমান্ড হাসপাতালের তরফে ময়নাতদন্তের রিপোর্ট কলকাতা হাইকোর্টে পেশ করা হয়।

বলে রাখি, গত শুক্রবার কাশীপুর রেল কোয়ার্টারের পরিত্যক্ত এক ঘর থেকে উদ্ধার হয় অর্জুন চৌরাসিয়ার ঝুলন্ত দেহ। অর্জুন চৌরাসিয়ার মা ও তাঁর পরিবার দাবী করেন, গত বৃহস্পতিবার গভীর রাতে কাশীপুর রেল কলোনিতে তাদের বাড়ির কাছে একটি গাড়ি দাঁড়িয়ে ছিল। সেখানেই কিছু একটা ঝামেলা চলছিল।

অর্জুনের পরিবার জানায়, সেই সময় অর্জুন একবার বাড়ি আসে। কিন্তু পরক্ষণেই বেরিয়ে যায় সে। অর্জুনের মা জানান যে তিনি কাউকে দেখতে পান নি।তবে তিনি শুনেছিলেন যে কেউ একজন তাঁর ছেলেকে হুমকি দিয়ে বলছে, “খুন করে ফেলে রেখে দেব, কেউ জানতেও পারবে না”। সেই ঘটনার পর দীর্ঘক্ষণ পেরিয়ে গেলেও অর্জুন বাড়ি ফেরেন নি।

পরিবারের সূত্রে খবর অনুযায়ী, এরপরই অর্জুনকে খোঁজাখুঁজি শুরুক্রে পরিবারের সদস্যরা। তাঁকে ফোনেও পাওয়া যায়নি বলে জানান তারা। আর তারপরই শুক্রবার সকালে মেলে অর্জুনের মৃতদেহ। এই নিয়ে তুমুল উত্তেজনা ছড়ায় গোটা এলাকায়।

এই ঘটনায় রাজনীতির রঙও লাগে। বিজেপি তাঁকে নিজেদের কর্মী বলে দাবী করে। আবার অন্যদিকে তৃণমূলের তরফে দাবী করা হয় যে অর্জুন নাকি নির্বাচনে তাদের দলের হয়ে কাজ করেছেন। ঘটনার দিনই অর্জুনের পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে যান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। পরিবারের পাশে থাকার আশ্বাস দেওয়ার পাশাপাশি তিনি এই ঘটনায় সিবিআই তদন্তেরও দাবী তোলেন। অর্জুনের পরিবার ও বিজেপির তরফে দাবী করা হয় যে অর্জুনকে খুন করা হয়েছে। কিন্তু এবার ময়নাতদন্তের রিপোর্টে এল সম্পূর্ণ অন্য তথ্য।

Related Articles

Back to top button