রাজ্য

‘দুয়ারে রেশন’ প্রকল্প বন্ধের দাবী, হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চে আবেদন রেশন ডিলারদের

‘দুয়ারে রেশন’ প্রকল্পে যাতে স্থগিতাদেশ জারি করা হয়, এই নিয়ে কলকাতা হাইকোর্টের সিঙ্গল বেঞ্চে আবেদন করেছিল রেশঞ ডিলাররা। কিন্তু সেখানে এই আবেদন খারিজ হয়ে যাওয়ায় এবার হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চের দ্বারস্থ হন ডিলাররা। ডিভিশন বেঞ্চের তরফে এই মামলাটি গ্রহণ করাও হয়েছে।

রাজ্য সরকার ‘দুয়ারে রেশন’ প্রকল্পের পাইলট প্রজেক্টের কাজ শুরুর নির্দেশ দেওয়ার পরই প্রকল্পে বন্ধের দাবী নিয়ে আদালতের দ্বারস্থ হন বেশকিছু রেশন ডিলার। মামলাকারী রেশন ডিলারদের দাবী করেঞ, “রাজ্য সরকারের দুয়ারে রেশন প্রকল্প কেন্দ্রীয় রেশন বণ্টন আইনের পরিপন্থী। প্রকল্পটি একাধারে খরচ সাপেক্ষ। সেই সঙ্গে এই পরিকল্পনা বাস্তবায়নের জন্য যে পরিমাণ অর্থ ও কর্মচারী প্রয়োজন, তাও অধিকাংশ রেশন ডিলারদের কাছে নেই”।

আরও পড়ুন- লালঝান্ডা ছেড়ে কংগ্রেসের তিরঙ্গা ধরার পথে বামপন্থী কানহাইয়া কুমার, রাহুল গান্ধীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করে কথাবার্তা প্রায় চূড়ান্ত

এই দাবীতে বিচারপতি অমৃতা সিনহার এজলাসে এই মামলার শুনানিতে বলা হয়, “আইন অনুযায়ী রেশন প্রাপক দোকানে এসে রেশন নেবেন, এটাই নিয়ম”। এই প্রকল্পের জন্য ডিলাররা বিপুল খরচ বহন করতে পারবেন না এমনটাও ডিলাররা জানান আদালতে।

এদিকে রাজ্যের তরফে পাল্টা জানানো হয় যে রেশন প্রাপকদের সুবিধার জন্যই এই প্রকল্প চালু করা হয়েছে। তবে বিজ্ঞপ্তি এখনও জারি হয়নি। আপাতত পাইলট প্রোজেক্ট চলছে। এমনটা করে জনসাধারণের থেকে কী পরিমাণ সাড়া পাওয়া যায়, তা দেখার পর সরকার আইন সংস্কার করবে।

আপাতত এই প্রকল্প শুধু সেপ্টেম্বর মাসের জন্য একটি পরীক্ষামূলক প্রকল্প। রাজ্যের এই যুক্তি মেনে নেয় বিচারপতি অমৃতা সিংয়ের বেঞ্চ ও রেশন ডিলারদের আবেদন খারিজ করে দেওয়া হয়। আদালতের তরফে জানানো হয় যে এটি এখনও যেহেতু একটি পরীক্ষামূলক প্রকল্প, তাই আদালত এতে কোনও হস্তক্ষেপ করবে না। বিজ্ঞপ্তি জারি হওয়ার পর বিষয়টি খতিয়ে দেখা যাবে বলে জানায় আদালত।

আরও পড়ুন- কয়লা পাচার তদন্তে ইসিএল কর্তার বাড়িতে সিবিআই, তল্লাশি অভিযান সিআইএসএফ কর্তার বাড়িতেও

তবে সিঙ্গল বেঞ্চের এই রায় মানতে নারাজ রেশন ডিলাররা। এই কারণে তারা বিচারপতি অমৃতা সিংয়ের রায়ের বিরোধীতা করে ডিভিশন বেঞ্চে আবেদন করেন। কলকাতা হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চের তরফে এই মামলাটি গ্রহণ করা হয়েছে। তবে ডিলাররা দ্রুত এই মামলার শুনানি চেয়েছিল। কিন্তু আদালতের তরফে জানানো হয়েছে যে এই মুহূর্তে আদালতে অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ মামলায় ব্যস্ত। তাই এই মামলার শুনানি হবে পরে।

Related Articles

Back to top button