সব খবর সবার আগে।

‘১০০টা ছেলে পাঠিয়ে দেব’, সায়নীর মন্তব্যকে ঘিরে তুমুল বিতর্ক, পুরনো এক মন্তব্যের মিল পাচ্ছেন বিরোধীরা

“এই জেলা থেকেই ১০০ জন ছেলে পাঠিয়ে দিলে আগরতলার বিজেপি ঠান্ডা হয়ে যাবে”। হ্যাঁ এভাবেই এক অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে বিজেপির বিরুদ্ধে আক্রমণ শানান অভিনেত্রী তথা যুব তৃণমূলের রাজ্য সভানেত্রী সায়নী ঘোষ। তাঁর এই মন্তব্যে প্রতায় অভিনেতা-সাংসদ তাপস পালের এক মন্তব্যের মিল পাচ্ছেন বিরোধীরা। সায়নী এই মন্তব্যকে ঘিরে বিতর্কের ঝড় উঠলেও অনেকেই কিন্তু সায়নীর পাশে দাঁড়িয়েছেন। বিজেপিকে আক্রমণ শানাতেই তিনি এমন মন্তব্য করেছেন বলে মত রাজনৈতিক মহলের একাংশের।

ঘটনাটি ঠিক কী?

আসলে, গতকাল, মঙ্গলবার পূর্ব মেদিনীপুর জেলার সুতাহাটার সুবর্ণ জয়ন্তী ভবনে সাংগঠনিক সভায় যোগ দেন যুব তৃণমূলের সভানেত্রী সায়নী ঘোষ। এই অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, “ত্রিপুরায় তৃণমূলের যুবশক্তির উপর আঘাত হানা হচ্ছে। ওখানকার মুখ্যমন্ত্রী লাঠি দিয়ে মারছেন, ছেলে পাঠিয়ে দিয়ে বলছেন বাড়িতে আগুন লাগিয়ে দিতে। জয়া-দেবাংশু-সুদীপদের সঙ্গে কী হল তা আপনারা দেখতেই পেয়েছেন। জেলা সফরে এসে মনে হচ্ছে পূর্ব মেদিনীপুর থেকেই ১০০ জন ছেলে পাঠিয়ে দিলে আগরতলা ঠান্ডা হয়ে যাবে। ত্রিপুরার সংগঠনকে কীভাবে ধূলিস্যাৎ করতে হয় তা আমাদের এই ১০০টা ছেলে শিখিয়ে দেবে”।

অনেকেই সায়নীর এই মন্তব্যের সঙ্গে প্রয়াত অভিনেতা তথা রাজনীতিবিদ তাপস পালের এক মন্তব্যের মিল পেয়েছেন। ২০১৪ সালে কৃষ্ণনগরের চৌমাহা গ্রামে প্রকাশ্য জনসভায় তাপস পালের একটি মন্তব্য করেন, “একটা যদি কোনও বিরোধী, তৃণমূলের কোনও মেয়ে, কোনও বাপ, কোনও বাচ্চার গায়ে হাত দেয় তাদের গুষ্টিকে আমি যাতা করে চলে যাব। আমি প্রচুর মস্তানি করেছি। আমি কাউকে ছেড়ে দেব না। ছেলেদের ঢুকিয়ে দেব, রেপ করে চলে যাবে”। তাঁর এই মন্তব্য বিতর্কের ঝড় তুলেছিল।

সায়নীর এই মন্তব্যে কটাক্ষ করেছেন নানান বিরোধী নেতারা। বিজেপি নেতা সায়ন্তন বসু বলেন, “তৃণমূলের কোনও সংগঠন ত্রিপুরায় নেই। তাই বাংলা থেকে লোকজন পাঠাতে হতে পারে। আমরা আগে থেকেই সন্দেহ প্রকাশ করেছিলাম এখান থেকে লোক নিয়ে গিয়ে ত্রিপুরার মিছিলে হাঁটাচ্ছে। সেই অভিযোগ প্রমাণিত হল”। বাম নেতা রবীন দেবের তোপ দেগে বলেন, “সায়নী যে দলে যোগ দিয়েছেন তার সংস্কৃতির সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ কথা বলেছেন”।

আরও পড়ুন- ‘মা’ মমতার থেকে পুজোর উপহার পেলেন দেবাংশু, বেজায় খুশি তৃণমূল নেতা

তবে সায়নীর এই মন্তব্যকে আবেগের বশে বলা মন্তব্য বলেই মনে করছেন বাম মনস্ক অভিনেতা বাদশা মৈত্র। তাঁর কথায়, “তাপস পাল এবং সায়নী দুজনের মন্তব্য সম্পূর্ণ আলাদা প্রেক্ষিতে করা। কোনও ভাবেই দুটি বক্তব্যের প্রেক্ষিতে কোনও মিল নেই। আবেগের বশে সায়নী হয়তো এই কথা বলেছেন। তবে কথাটি অত্যন্ত অবাস্তব। আমরা সকলেই বিজেপিকে হারাতে চাই। কিন্তু, ১০০ জন দিয়ে বিজেপির সংগঠন ধুলিসাৎ করা সম্ভব নয়”।

এদিকে, তৃণমূলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষের এই মন্তব্যের প্রেক্ষিতে দাবী, “ত্রিপুরায় তৃণমূলের উপর হামলা করা হচ্ছে। কিন্তু, পুলিশ কিছু বলছে না। এরসঙ্গে তাপস পালের মন্তব্যের কোনও যোগ বা মিল নেই। কারণ এতে দেখা যাচ্ছে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়থেকে যতজনের উপর হামলা হয়েছে দেখা গেছে পুলিশ কোনও ব্যবস্থা নেয়নি। সায়নীর মন্তব্যের সঙ্গে অশালীন ইঙ্গিত বা হিংসার কোনও যোগ নেই”।

You might also like
Comments
Loading...