সব খবর সবার আগে।

WB Election 2021: ‘বেশি খেলতে যেও না, শীতলকুচির খেলা খেলে দেব’, বিস্ফোরক মন্তব্য করে বিতর্কে জড়ালেন বিজেপি প্রার্থী সায়ন্তন বসু

গতকালই এক বিস্ফোরক মন্তব্য করে বিতর্কে জড়িয়েছিলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। এবার সেই বিতর্কের ভাগীদার হলেন বিজেপি প্রার্থী সায়ন্তন বসু। জলপাইগুড়ির ধূপগুড়িতে প্রচারে গিয়ে তিনি বলেন, “বেশি খেলা খেলতে যেও না, শীতলকুচির খেলা খেলে দেব”।

এদিন প্রচারে শীতলকুচির প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, “সকাল বেলা আনন্দ বর্মনকে মেরে দিল। প্রথম ভোট দিতে গিয়েছিল। বেশিক্ষণ অপেক্ষা করতে হয়নি, ৪ ঘণ্টার মধ্যেই ৪টে কে রাস্তা দেখিয়ে দেওয়া হয়েছে”। এরপর ‘সোলে’ ছবির সংলাপ উদ্ধৃত করে তিনি বলেন, “এক মারোগে তো চার মারেঙ্গে, শীতলকুচিতেও তাই হয়েছে”।

আরও পড়ুন- ফের উত্তপ্ত নানুর! তৃণমূল-বিজেপির সংঘর্ষে বোমাবাজি, আটক দু’পক্ষেরই কয়েকজন

বিজেপি প্রার্থীর এই মন্তব্যকে ঘিরে শুরু হয়েছে বিতর্ক। তৃণমূল প্রার্থী তাপস রায়ের দাবী, এটি একটি স্বৈরাচারী বক্তব্য। কমিশন সত্বর কোনও পদক্ষেপ নিক। “আত্মরক্ষার্থে গুলি চালানো হয়নি। খেলবার জন্যই এই ঘটনা”, মন্তব্য সুজনের।

এদিকে, গতকাল বরানগরে ভোট প্রচারে গিয়েছিলেন দিলীপ ঘোষ। সেখানেও শীতলকুচির প্রসঙ্গ টেনে তিনি সংশ্লিষ্ট ভোটারদের উদ্দেশ্যে বলেন, “১৭ তারিখে ভোট দিতে যান, বাহিনী থাকবে। ভোট দিতে না পারলে আমরা আছি। শীতলকুচিতে কী হয়েছে দেখেছেন তো? বাড়াবাড়ি করলে জায়গায় জায়গায় শীতলকুচি হবে”।

আরও পড়ুন- ভালোই ব্যবসা চলছে, সবকটার পাখনা কাটব, শাসকদলকে বেলাগাম আক্রমণ মিঠুনের

উল্লেখ্য, শনিবার চতুর্থ দফার ভোটের দিন সকাল থেকেই উত্তেজনা ছড়ায় শীতলকুচিতে। প্রথমে ভোট দিরে আসা এক যুবককে গুলিবিদ্ধ করে হত্যা করা হয়। এরপর মাথাভাঙার আমতলি মাধ্যমিক শিক্ষাকেন্দ্রে কার্যত ধুন্ধুমার পড়ে যায়। কেন্দ্রীয় বাহিনীর গুলিতে ৪ জনের মৃত্যু হয়।

জানা গিয়েছে, বুথ থেকে ৩০০ মিটার দূরে ঘটনাটি ঘটে। প্রথমে সেখানে এক দফা গন্ডগোল হয়। শূন্যে কয়েক রাউন্ড গুলি ছুঁড়ে তা নিয়ন্ত্রণ করা হয়। ঘণ্টাখানেক পরে আবার ঝামেলা বাধে। ফের একটি দল চড়াও হয়। প্রথমে এক পুলিসকে মারধর করা হয়। এরপর প্রিসাইডিং অফিসারকেও মারধর করা হয় বলে অভিযোগ। ঘিরে ফেলা হয় ফোর্সকে। তখনই বাহিনী গুলি চালায় বলে জানিয়েছেন এক জওয়ান অফিসার। এই ঘটনা নিয়ে শুরু হয় রাজনৈতিক বিবাদ।

You might also like
Comments
Loading...