সব খবর সবার আগে।

‘শুভেন্দু, সৌগত-সহ ৫ সাংসদ যে কোনও সময়ে বিজেপিতে আসবেন’ বিষ্ফোরক অর্জুন সিং

এই জল্পনা শেষ হয়েও হয় না। আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনের আগে বঙ্গ রাজনীতিতে আশঙ্কা ও উদ্বেগ মিলেমিশে একাকার। রাজ্যের পরিবহনমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারীর শাসক দলে ভবিষ্যৎ নিয়ে ওঠা প্রশ্নের মাঝেই ফের নয়া মাত্রা যোগ করলেন বারাকপুরের বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিং।

ক্রমেই শুভেন্দু ও শাসকের সম্পর্ক নিম্নগামী হচ্ছে। শুভেন্দুকে বিজেপিতে যোগদান করার ওপেন ইনভিটেশন ইতিমধ্যেই দিয়ে রেখেছেন বঙ্গ বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ। এবার আসরে নামলেন বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিং‌ও।

শনিবার সকালে ছটপুজো উপলক্ষে নৌকায় গঙ্গা ভ্রমণের সময়ে বিস্ফোরক মন্তব্য করে বসলেন তিনি। নিজের মন্তব্যে তিনি বললেন, “শুধু শুভেন্দু অধিকারীই নয়, সৌগত রায়-সহ অন্তত ৫ জন তৃণমূল সাংসদ যে কোনও সময়ে ইস্তফা দিয়ে বিজেপিতে যোগদানের জন্য প্রস্তুত। এটা শুধুমাত্র সময়ের অপেক্ষা।” আর অর্জুনের এহেন মন্তব্যের পর দমদমের তৃণমূল সাংসদ সৌগত রায়‌ নিজের প্রতিক্রিয়ায় জানান, “আমি মরে যাব, তবু বিজেপিতে কখনও যাব না।”

দীর্ঘদিন ধরেই তৃণমূলের সঙ্গে শুভেন্দু দূরত্বের ছবিটা প্রকাশ্যে আসতে শুরু করেছে। কিন্তু আপাতত তিনি তৃণমূলেই থাকছেন এমন কথা শোনা গেছে খোদ শুভেন্দুর মুখেই। কিন্তু তাতে গুঞ্জনে ইতি পড়েনি। রাজনৈতিক বিশ্লেষকেরা মনে করছেন জল্পনা জিইয়ে রাখছেন শুভেন্দু।

আসলে, বিভিন্ন সময়‌ই অরাজনৈতিক একাধিক সভায় নানা ইঙ্গিতপূর্ণ মন্তব্য করেছেন রাজ্যের পরিবহণ মন্ত্রী। যেমন ১৯ তারিখ রামনগরের সভা থেকে তিনি বলেন, ”মুখ্যমন্ত্রীও তাড়াননি, আমিও দল ছাড়িনি।” তবে একবারের জন্যও নাম করেননি তৃণমূলের।

এদিকে, তাঁর মতো হেভিওয়েট বিক্ষুব্ধ নেতাকে দলে টানতে অতি উৎসাহী বঙ্গীয় পদ্মশিবির। কারণ, মুকুল রায়ের পর শুভেন্দু অধিকারীর মতো জনপ্রিয় নেতা, সংগঠককে পেলে একুশের লড়াইয়ে তাদের শক্তি অনেকটাই বাড়বে বলে মনে করছে বিজেপি নেতৃত্ব। রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ থেকে শুরু করে কেন্দ্রীয় নেতাদের অনেকেই শুভেন্দু অধিকারীরকে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে স্বাগত জানিয়েছেন। সেই তালিকায় এবার সৌগত রায়ের নামও জুড়লেন প্রাক্তন তৃণমূল বিধায়ক, বর্তমান বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিং। শুভেন্দু অধিকারী, সৌগত রায়-সহ ৫ জন তৃণমূল সাংসদ যে কোনও সময়ে শিবির বদলাতে প্রস্তুত, এই মন্তব্যের পর অর্জুন আরও বললেন, ”শুভেন্দু অধিকারীর মতো জননেতা যদি তৃণমূল ছেড়ে দেন, সরকার পড়ে যাবে। তৃণমূলের আর কোনও শক্তি থাকবে না।”

You might also like
Comments
Loading...