রাজ্য

‘পাগল’ মুকুল রায়কে পাবলিক অ্যাকাউন্ট কমিটির চেয়ারম্যান পদে কেন রাখা হয়েছে? প্রশ্ন তুলে পিএসি-র চেয়ারম্যান বদলের দাবী শুভেন্দুর

ফের ‘পাগল’ মুকুল রায়কে পাবলিক অ্যাকাউন্ট কমিটির চেয়ারম্যান পদ থেকে সরানোর দাবী তুললেন রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। আজ, মঙ্গলবার বিধানসভায় রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়কে স্বাগত জানাতে স্পিকার বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে হাজির ছিলেন শুভেন্দুও। এদিন রাজ্য সরকার ও বিধানসভার স্পিকারকে কড়া ভাষায় তোপ দাগেন রাজ্যপাল। এই ঘটনায় শুভেন্দু তাঁর পক্ষ নেন।

শুভেন্দু বলেন, “স্বীকৃত বিরোধী দলকে কোনও গুরুত্ব দেওয়া হয় না। বিজেপি বিধায়কদের ভাঙিয়ে নেওয়া হয়। এমনকি, তাঁদের গুরুত্বপূর্ণ পদও দেওয়া হয়। মুকুল রায়কে পাবলিক অ্যাকাউন্টস কমিটির চেয়ারম্যান করা হয়েছে। পরিষদীয় রাজনীতির রীতিনীতি মানা হয়নি”।

এরপর তিনি আরও বলেন, “পাগল মুকুল রায়কে পাবলিক অ্যাকাউন্টস কমিটির চেয়ারম্যান পদে রাখা হয়েছে। স্পিকারের উচিত ওই পদটি বিজেপি-কে দিয়ে দেওয়া। কারণ পরিষদীয় রাজনীতির রীতিনীতি অনুযায়ী তা বিরোধী দলের পাওয়া উচিত”।

একুশের বিধানসভা নির্বাচনের পর নতুন বিধানসভা গঠন হলে পিএসি-র চেয়ারম্যান হিসেবে বালুরঘাটের বিধায়ক অশোক লাহিড়ীর নাম প্রস্তাব করেন শুভেন্দু অধিকারী। কিন্তু বিধানসভার স্পিকার সেই সময় সদ্য বিজেপি ত্যাগ করে তৃণমূলে যোগ দেওয়া মুকুল রায়কে পাবলিক অ্যাকাউন্ট কমিটির চেয়ারম্যান ঘোষণা করেন।

এই নিয়ে তীব্র প্রতিবাদ জানানো হয় বিজেপির তরফে। বিধানসভা ত্যাগ করে বেরিয়ে যান উপস্থিত সমস্ত বিজেপি নেতা। এমনকি, বিধানসভার অন্যান্য কমিটির চেয়ারম্যান পদ থেকে ইস্তফা দেন বিজেপি নেতারা। এই বিষয়টি নিয়ে আদালতে মামলাও করেন বিরোধী দলনেতা।

মুকুলের বিধায়ক পদ খারিজ নিয়েও স্পিকারের কাছে আবেদন করার পাশাপাশি কলকাতা হাইকোর্টে মামলা করেছে বিজেপি। চলতি মাসের ২৮শে জানুয়ারি ফের স্পিকারের কাছে মুকুলের বিষয়টি নিয়ে শুনানি রয়েছে। সূত্রের খবর অনুযায়ী, সম্প্রতি বিজেপির তরফে স্পিকারের কাছে ফের বালুরঘাটের বিধায়ককে পিএসির চেয়ারম্যান করার দাবী জানানো হয়েছে।

উল্লেখ্য, সাম্প্রতিক অতীতে সংবাদমাধ্যমের প্রশ্নের উত্তরে  মুকুল রায় বলেন যে পুরভোটে জিতবে ভারতীয় জনতা পার্টি। আবার তৃণমূল ও বিজেপিকে একই রাজনৈতিক দলও বলেন তিনি। তাঁর এই মন্তব্যের কোনও প্রতিক্রিয়া মেলেনি তৃণমূলের তরফে। এদিকে, বিজেপিও মুকুলের এমন অসংলগ্ন কথায় গুরুত্ব দিতে নারাজ। রাজনৈতিক মহলের মতে, মুকুল রায়ের মাঝেমধ্যেই এমন নানান অসংলগ্ন মন্তব্য করার জেরেই শুভেন্দু তাঁকে এমন কটাক্ষ করেছেন।

Related Articles

Back to top button