রাজ্য

‘মুখ্যমন্ত্রীর চোখের ইশারাতেই রাজ্যপালকে শারীরিক হেনস্থা করেছেন তৃণমূলের মহিলা বিধায়করা’, উঠল বিস্ফোরক দাবী

রাজ্যপালের ভাষণে কোথাও পুরভোটে সন্ত্রাস নিয়ে কোনও কথা নেই, সেই দাবী জানিয়েই আজ, সোমবার বিধানসভায় অধিবেশন শুরু হওয়ার আগেই বিক্ষোভ দেখায় বিজেপি বিধায়করা। এতে নেতৃত্ব দেন রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। আর বিক্ষোভের পরই মুখ্যমন্ত্রী ও তৃণমূল বিধায়কদের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক অভিযোগ আনলেন তিনি।

শুভেন্দুর দাবী, বিধানসভা কক্ষে রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়কে শারীরিক নির্যাতন করা হয়েছে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের চোখের ইশারাতেই তৃণমূলের মহিলা বিধায়করা রাজ্যপালকে ধাক্কা দেন বলে অভিযোগ শুভেন্দুর। তিনি জানান যে রাজ্যপাল পাঁচবার বেরিয়ে যেতে চেয়েছেন কিন্তু তাঁকে বেরোতে দেওয়া হয়নি। শশী পাঁজা, চন্দ্রিমা ভট্টাচার্যের নাম করে অভিযোগ জানান শুভেন্দু।

এদিন সাংবাদিক সম্মেলনে শুভেন্দু বলেন যে বিধানসভা কক্ষে রাজ্যপালকে নিগৃহীত করা হয়েছে। শুভেন্দু বলেন, রাজ্যপাল স্বীকার করবেন কি করবেন না জানি না তবে তৃণমূলের গুণ্ডা বিধায়করা রাজ্যপালকে ধাক্কা মেরেছে। মুখ্যমন্ত্রীর চোখের ইশারায় একাধিক মহিলা বিধায়ক রাজ্যপালকে শারীরিক নির্যাতন করেছে”।

বিরোধী দলনেতা এও জানান যে রাজভবনে গিয়ে রাজ্যপালের স্বাস্থ্যর খোঁজ নেবেন তারা। প্রয়োজনে চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়ার কথাও বলবেন রাজ্যপাল ধনখড়কে। শুধু তাই নয়, শুভেন্দুর আরও দাবী, বিজেপি বিধায়কদের অশালীন ভাষায় আক্রমণ করা হয়েছে।

এদিন শুভেন্দু আরও অভিযোগ করে জানান যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যা চেয়েছেন সেটাই রাজ্যপালকে দিয়ে পরানহ্যেছে। শুভেন্দুর কথায়, রাজ্যপালের বক্তৃতার কপিতে পুরভোটের ভোটলুটের কথা নেই, কর্মসংস্থানের কথা নেই। এমনকি, জমি নীতির উল্লেখও নেই এই কপিতে।

শুভেন্দু আরও জানান যে তিন মাস পর পর কেন রাজ্য সরকারকে বড় অঙ্কের ঋণ নিতে হচ্ছে তার উল্লেখও নেই রাজ্যপালের কপিতে। অবসরপ্রাপ্তদের নিয়ে কোনও দিশা নেই। চুক্তিবদ্ধদের সম কাজে সম বেতনের বিষয়ে কোনও দিশা নেই বলে দাবি করেছেন নন্দীগ্রামের বিধায়ক।

Related Articles

Back to top button