রাজ্য

‘মহারাষ্ট্র দিয়ে শুরু, রাজস্থান-ঝাড়খণ্ডের পর ২০২৪-এই এ রাজ্যে তৃণমূল সরকারের বিসর্জন হবে’, বিস্ফোরক দাবী শুভেন্দুর

খুব তাড়াতাড়িই নাকি বিসর্জন হতে চলেছে তৃণমূল সরকারের (TMC government)। অন্তত বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীর (Suvendu Adhikari) ভবিষ্যতবাণী তো তেমনটাই বলছে। তৃণমূল সরকারের পতনের জন্য আর  ২০২৬-এর বিধানসভা নির্বাচন পর্যন্তও নাকি আর অপেক্ষা করার কোনও প্রয়োজন নেই। কারণ শুভেন্দুর কথায়, চব্বিশের লোকসভা নির্বাচনের (Lok Sabha Election) পরই বিসর্জন হবে তৃণমূল সরকারের।

গতকাল, সোমবার কোচবিহার ও আলিপুরদুয়ারের ফালাকাটায় দুটি সভায় যোগ দেন শুভেন্দু অধিকারী। সেই সভাতেই তিনি একপ্রকার ২০২৪ সালের লোকসভা নির্বাচনের ভবিষ্যৎবাণী করেন। অবশ্য তা তৃণমূলের ভবিষ্যৎবাণী বললেও খুব একটা ভুল বলা হবে না। এদিন এই সভা থেকে তিনি তিন বিজেপি বিরোধী রাজ্য মহারাষ্ট্র, রাজস্থান ও ঝাড়খণ্ডের প্রসঙ্গ টানেন।  

সেই প্রসঙ্গে বক্তব্য রাখতে গিয়েই তিনি ২০২৪-এ তৃণমূলের পতনের কথা বলেন। তাঁর কথায়, “সবে মহারাষ্ট্র দিয়ে শুরু হয়েছে। এ বারে ঝাড়খণ্ড, রাজস্থানেও হবে। এই রাজ্যেও ২০২৬ পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে না। ২০২৪ সালেই তৃণমূল সরকারকে আমরা বিসর্জন দিয়ে দেব”। এখান থেকে এবার প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে যে তাহলে কী সত্যিই মহারাষ্ট্রের রাজনৈতিক সংকটের পিছনে কোনওভাবে বিজেপির হাত রয়েছে?

বিজেপির তরফে বারবার এর আগে দাবী করা হয়েছে যে মহারাষ্ট্রে মহা বিকাশ অঘোড়ি জোট সরকারের টালমাটাল পরিস্থিতি নিয়ে তারা কিছুই জানে না। এটা একেবারেই শিবসেনার অভ্যন্তরীণ বিষয় বলে মত গেরুয়া শিবিরের। তবে এদিন শুভেন্দু দাবী করেন যে বিদ্রোহী শিবসেনা বিধায়করা বিজেপির সঙ্গেই রয়েছেন।

রাজস্থানে আগামী বছর রয়েছে বিধানসভা নির্বাচন আর ঝাড়খণ্ডে রয়েছে ২০২৪ সালে। অন্যদিকে পশ্চিমবঙ্গে বিধানসভা নির্বাচন রয়েছে ২০২৬ সালে। কিন্তু শুভেন্দুর দাবী ২০২৪-এর লোকসভা নির্বাচনেই তৃণমূল সরকার পড়ে যাবে। এই নিয়ে বিজেপি রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদার বলেন, “২০২৪-এর আগেই বাংলায় সরকার পড়ে যেতে পারে। তৃণমূলের অবস্থা একেবারেই ভালো নয়”।

এই মন্তব্যের পাল্টা দেন তৃণমূল নেতা রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, “ঝুলি থেকে বেড়ালটা শুভেন্দু তো নিজেই বার করে ফেললেন। টাকা দিয়ে, সিবিআই লাগিয়ে এ ভাবেই বিজেপি বিভিন্ন রাজ্যে বিরোধীদের সরকার ফেলার জন্য কলকাঠি নাড়ছে বিজেপি। কিন্তু পশ্চিমবঙ্গের মানুষ আলাদা ধাতুতে গড়া। এক বার বিজেপির শিক্ষা হয়েছে। ২০২৪ সালে বাকিটাও পেয়ে যাবে। ২০২৬ পর্যন্ত আর অপেক্ষা করতে হবে না বিজেপিকে”।

Related Articles

Back to top button