সব খবর সবার আগে।

প্রাণ সংশয়ের আশঙ্কায় ভুগছেন বিজেপি নেতা শুভেন্দু অধিকারী! দ্বারস্থ কলকাতা হাইকোর্টের 

তৃণমূলে যখন ছিলেন তখনই তার সঙ্গী সাথীরা তাঁর প্রাণের সংশয় রয়েছে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছিলেন। আর এবার খোদ জীবন সংশয়ে ভুগছেন শুভেন্দু অধিকারী ৷ কিছুদিন আগেই ২১ বছরের দলের সঙ্গে সম্পর্ক ছেদ করে পদ্মশিবিরে যোগদান করেন এই বরিষ্ঠ তৃণমূল নেতা।

আর তারপর থেকেই তৃণমূলের তরফ থেকে তার উপর হতে পারে প্রাণঘাতী হামলা, এই আশঙ্কায় ভুগছেন শুভেন্দু। আর নিজের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতেই এবার কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হলেন এই বিজেপি নেতা।

কেন্দ্রের তরফে জেড ক্যাটাগরির নিরাপত্তা  পেয়ে থাকেন তিনি। কিন্তু তাতেও প্রাণ সংশয়ের সম্ভাবনা কাটছে না ৷ কলকাতা হাইকোর্টে মামলা দায়ের করে শুভেন্দু অধিকারীর তরফে বলা হয়েছে একাধিক গোয়েন্দা রিপোর্টে তাঁর প্রাণ সংশয়ের কথা বলা হয়েছে ৷ কেন্দ্রীয় নিরাপত্তা থাকলেও তিনি যে রাস্তা দিয়ে বিভিন্ন জনসভা করতে যাচ্ছেন সেখানে সুরক্ষার দায়িত্ব রাজ্য পুলিশের হাতে ৷ সেখানে রাজ্য পুলিশ সহায়তা করছেন না বলে দাবি করেছেন শুভেন্দু অধিকারী ৷ অভিযোগ, তাঁর জন্য আয়োজিত জনসভায় ইচ্ছে করে বিশৃঙ্খলা তৈরি করা হচ্ছে ৷ অশান্তি ছড়ানোর এই চেষ্টায় কোনও ব্যবস্থা নিচ্ছে না পুলিশ বলে দাবি শুভেন্দুর ৷ জুট কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান হাইকোর্টে আবেদন করেছেন জনসভায় যেন পর্যাপ্ত পুলিশি নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয় ৷ এদিন আদালতে বাঁচার অধিকার সুনিশ্চিত করার আবেদন করেছেন শুভেন্দু৷ তাঁর আবেদন, ‘রাজ্যকে প্রয়োজনীয় নির্দেশ দিক আদালত ৷

তবে, তাঁর প্রাণ সংশয়ের আশঙ্কা এই প্রথম নয় ৷ এর আগেও এই আশঙ্কা নিয়েই রাজ্যপালের কাছে দরবার করেছিলেন শুভেন্দু অধিকারী ৷ ৩রা জানুয়ারি নন্দীগ্রামে হামলা হয় ৷ তারপর গত ৮ই জানুয়ারি নন্দীগ্রামে শুভেন্দুর সভায় উত্তেজনা ছড়িয়েছিল। হঠাৎই শুরু হয়ে যায় চেয়ার ছোঁড়াছুঁড়ি। পড়তে শুরু করে ঢিল। বিজেপির তরফে তৃণমূলকে কাঠগড়ায় তোলা হলেও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, খেজুরির তৃণমূল বিধায়কের বিজেপিতে যোগদানের বিরোধিতায় বিক্ষোভ দেখাচ্ছিলেন বিজেপি কর্মীরাই।

 

 

_taboola.push({mode:'thumbnails-a', container:'taboola-below-article', placement:'below-article', target_type: 'mix'}); window._taboola = window._taboola || []; _taboola.push({mode:'thumbnails-rr', container:'taboola-below-article-second', placement:'below-article-2nd', target_type: 'mix'});
You might also like
Comments
Loading...