সব খবর সবার আগে।

আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে ভোটের কাছ থেকে অব্যাহতি চেয়ে হাইকোর্টের দ্বারস্থ প্রধান শিক্ষক- শিক্ষিকারা

ভারতবর্ষের ৫ রাজ্যে আসন্ন বিধানসভা নির্বাচন। আজ‌ই গুরুত্বপূর্ণ বৈঠকে বসছে ইলেকশন কমিশন। বাংলায় বিধানসভা নির্বাচনের নির্ঘণ্ট প্রকাশ হতে আর কিছু সময়ের অপেক্ষা মাত্র l

আর এই রকম উত্তপ্ত পরিস্থিতিতে এবার আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনে ভোটের কাজ থেকে প্রধান শিক্ষক-শিক্ষিকাদের অব্যাহতি দেওয়ার দাবি জানিয়ে হাইকোর্টে মামলা দায়ের করলেন সরকার পোষিত ও সাহায্যপ্রাপ্ত বিদ্যালয় ও মাদ্রাসার প্রধান শিক্ষক- শিক্ষিকারা।

আরও পড়ুন-ছাত্র-রাজনীতি থেকেও আধিপত্য সরছে তৃণমূলের! হাজার খানেক অনুগামী নিয়ে বিজেপিতে যাচ্ছেন তৃণমূলের দাপুটে ছাত্রনেতা

রাজ্য সংগঠন অ্যাডভান্সড সোসাইটি ফর হেডমাস্টার্স অ্যান্ড হেডমিস্ট্রেসেস (পূর্বতন স্টেট ফোরাম অফ হেডমাস্টার্স অ্যান্ড হেডমিস্ট্রেসেস) এর সাধারণ সম্পাদক চন্দন কুমার মাইতি এই বিষয়ে নিজের বক্তব্যে জানিয়েছেন, বিদ্যালয় প্রধান সিঙ্গেল ক্যাডার পোস্ট। সেই সঙ্গে বিদ্যালয়ের প্রশাসনিক, শিক্ষা-সহ সমস্ত ক্ষেত্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত হলেন প্রধান শিক্ষক- শিক্ষিকারা। ফলে তাঁদেরকে নির্বাচনের সময়ে ভোটের দায়িত্ব দিলে একদিকে যেমন বিদ্যালয়ে অচলাবস্থা তৈরি হয়, তেমনি যে সমস্ত স্কুলে পোলিং স্টেশন বা সেক্টর অফিস হয় সেখানেও নানান সমস্যা দেখা দেয়।

চন্দন কুমার মাইতির আরও বক্তব্য, বেতন কাঠামো অনুযায়ী নির্বাচনের কাজে দায়িত্ব বণ্টনের নিয়মও মানা হয়নি। অনেক প্রধান শিক্ষক- শিক্ষিকাকে ফার্স্ট পোলিং এমনকি সেকেন্ড পোলিং অফিসারের দায়িত্বও দেওয়া হয়েছে। সোসাইটির পক্ষ থেকে নির্বাচনের বহু আগে থেকে ইলেকশন কমিশনকে এই বিষয়ে বারবার ডেপুটেশন দেওয়া হয়েছিল বলে জানান তিনি l

একইসঙ্গে দাবি করে তিনি জানিয়েছেন, সে সময়ের তাঁদের মৌখিক আশ্বাস দেওয়া হয়েছিল বটে কিন্তু তার কোনোও প্রতিফলন দেখা যায়নি। তাই বাধ্য হয়েই হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন তাঁরা। আগামী ১লা মার্চ মামলাটি বিচারপতি সব্যসাচী ভট্টাচার্যের এজলাসে শুনানির সম্ভাবনা রয়েছে।

_taboola.push({mode:'thumbnails-a', container:'taboola-below-article', placement:'below-article', target_type: 'mix'}); window._taboola = window._taboola || []; _taboola.push({mode:'thumbnails-rr', container:'taboola-below-article-second', placement:'below-article-2nd', target_type: 'mix'});
You might also like
Comments
Loading...