রাজ্য

গল্প নয় সত্যি! টেট পরীক্ষায় ১০০-তে ১০৯ নম্বর পেলেন পরীক্ষার্থী, চূড়ান্ত বেনিয়ম নিয়ে ক্ষোভ জারি জনগণের, শুরু বিতর্ক

বিতর্ক যেন প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের পিছনই ছাড়ছে না। গতকাল, সোমবারই সামনে আসে ডিএলএড পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস হওয়ার ঘটনা। আএ এরই মধ্যে ফের এক নয়া বিতর্কে রাজ্যের প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ। অভিযোগ, টেট পরীক্ষার নম্বরের যে তালিকা পর্ষদ প্রকাশ করেছে, তাতে পরীক্ষার্থী ১০০-তে ১০৯ নম্বর পেয়েছেন।

কলকাতা হাইকোর্ট নির্দেশ দেয় যে ২০১৪ সালের টেট উত্তীর্ণদের নম্বরের তালিকা প্রকাশ করতে হবে। সেই নির্দেশ পাওয়া মাত্রই তৎপর হয় প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ। গতকাল, সোমবার রাতে পর্ষদের তরফে সেই নম্বর প্রকাশ করা হয়। আর সেই নম্বর প্রকাশ হতেই শুরু হয় চাঞ্চল্য।

প্রত্যেক টেট প্রার্থীর মাধ্যমিক থেকে টেটে প্রাপ্ত নম্বরের তালিকা প্রকাশ করে পর্ষদ। তাতেই দেখা যায় চূড়ান্ত বিভ্রাট। তালিকায় দেখা গিয়েছে, কোনও কোনও পরীক্ষার্থী ১০০ শতাংশ নম্বর পেয়েছেন তো কেউ কেউ আবার পেয়েছেন ১০৯ শতাংশ নম্বর। অর্থাৎ পূর্ণ নম্বরের বেশিও নম্বর পেয়েছেন কেউ কেউ।

এই বিষয় নিয়ে তুমুল শোরগোল শুরু হয়। জানাজানি হতেই নড়েচড়ে বসে পর্ষদ। পর্ষদের তরফে ভুল স্বীকার কর হয়। দ্রুত এই ভুল সংশোধন করা হবে বলে আশ্বাস দেওয়া হয় পর্ষদের তরফে।এই ঘটনা নিয়ে বেশ বিতর্ক তৈরি হয়।

তবে টেট তালিকা নিয়ে এমন বিতর্ক নতুন কিছু নয়। কিছুদিন আগেও টেট তালিকা নিয়ে বেশ বিতর্ক জন্ম নেয়। সেই তালিকায় দেখা গিয়েছিল যে টেট উত্তীর্ণদের অনেকের নামই রাজ্যের রাজনৈতিক নেতা-নেত্রীদের নামের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ। সেই নিয়েও সেবার সাফাই দিয়েছিলেন পর্ষদ সভাপতি গৌতম পাল।

Related Articles

Back to top button