রাজ্য

বিজেপি নেত্রীকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে গলায়-বুকে কোপ, তৃণমূলের বিরুদ্ধে হামলার অভিযোগ নেত্রীর স্বামীর, তুমুল হইচই মালদায়

বিজেপি নেত্রীর (BJP Leader) উপর ধারালো অস্ত্র দিয়ে হামলা। ঘরে ঢুকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপ মারা হয়েছে চাঁচলের মালতিপুরে মালদা উত্তরের বিজেপির সাংগঠনিক মহিলা মোর্চার সহ-সভাপতি মৌসুমি দাসকে (Mousumi Das)। তৃণমূলের (TMC) বিরুদ্ধে বিজেপি নেত্রীকে মারার অভিযোগ উঠেছে। এই ঘটনায় ওই এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে।

সূত্রের খবর অনুযায়ী, এদিন কয়েকজন দুষ্কৃতী মুখে কালো কাপড় বেঁধে প্রথমে মৌসুমিদেবীর বাড়িতে ঢোকে। বেধড়ক মারধর করা হয় তাঁকে। এরপরই ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করা হয় নেত্রীকে। গলায় ও বুকে গুরুতর আঘাত লেগেছে মৌসুমিদেবীর। গুরুতর জখম অবস্থায় তাঁকে চাঁচল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

মৌসুমির স্বামী পিন্টু মণ্ডলের দাবী তৃণমূলের মদতেই এই হামলা করা হয়েছে তাঁর স্ত্রীর উপর। তিনি এই প্রসঙ্গে বলেন, “ঘরের মধ্যে শুয়েছিল। হঠাৎ মুখে কাপড় বেঁধে দুটো ছেলে দোতলার ঘরে ঢোকে। তারপর ওকে মারধর শুরু করে। একজন চাকু দিয়ে গলার নিচে আঘাত করে। তখন ও চিৎকার শুরু করলে ওকে দেওয়ালে ধাক্কা মেরে ফেলে দেয়। তাতে ওর মাথাতেও আঘাত লেগেছে। ওর চেঁচামেচি শুনেই আমরা ছুটে যাই উপরে। তখন ওরা ছাদ থেকে ঝাপ মেরে পালিয়ে যায়”।

নেত্রীর স্বামীর কথায়, “রাজনীতির কারণেই এই হামলা। তৃণমূলের বিরুদ্ধেই আমাদের অভিযোগ। আমার স্ত্রী বিজেপি করে, আমরা বিজেপি করি। ও মালতিপুর বিধানসভার ভোটে বিজেপি ক্যান্ডিডেট হিসাবে দাঁড়িয়েছিল। তার জন্য ওদের ক্ষোভ রয়েছে। আমরা থানায় অভিযোগ করব। আমরা দোষীর শাস্তি চাইছি”

যদিও তৃণমূলের তরফে এই সমস্ত দাবী নস্যাৎ করে দেওয়া হয়েছে। এই ঘটনা প্রসঙ্গে স্থানীয় তৃণমূল নেতা তথা জেলা তৃণমূলের মুখপাত্র শুভময় বসু বলেন, “এখনও অবধি মালতিপুর ব্লক থেকে এ ব্যাপারে কোনও খবর নেই। আপনাদের কাছেই প্রথম শুনছি। এখন উনি কী কারণে ওখানে ছুরিকাহত হয়েছেন তা আমাদের কাছে স্পষ্ট নয়। প্রশাসন সজাগ রয়েছে। বিষয়টা দেখা হবে। তবে বিজেপির অভ্যাস কথায় কথায় তৃণমূলের বিরুদ্ধে কাদা লাগানো। তাই বিজেপি যেন আবার কাদা লাগাতে না যায়”।

Related Articles

Back to top button