রাজ্য

‘রোজ দ্রৌপদীদের বস্ত্রহরণ হচ্ছে, দায়ী মোদী-শাহ’, প্রধানমন্ত্রী-স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে দুর্যোধন-দুঃশাসন বলে কটাক্ষ তৃণমূলের সাবিত্রীর, বিধানসভায় বিক্ষোভ বিজেপির

দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী (Narendra Modi) ও কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ্‌’কে (Amit Shah) দুর্যোধন-দুঃশাসন বলে কটাক্ষ করেছিলেন তিনি। তা নিয়ে শুরু হয় তুমুল বিতর্ক (controversy)। কিন্তু এত বিতর্ক সত্ত্বেও নিজের বক্তব্যে অনড় মালদার মানিকচকের তৃণমূল বিধায়ক সাবিত্রী মিত্র (Sabitri Mitra)। আজ জোর গলায় তিনি বললেন, “যা বলেছি, ঠিক বলেছি”।

উল্লেখ্য, গত রবিবার মালদার রতুয়ায় এক দলীয় সভায় সাবিত্রী মিত্র বলেন, “মমতাকে শূর্পণখা বললে প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে দুর্যোধন-দুঃশাসন বলব”। তৃণমূল নেত্রীর এহেন মন্তব্য নিয়ে শুরু হয় তুমুল বিতর্ক। সাবিত্রীর এই মন্তব্যের প্রতিবাদে সরব হয় বিজেপি।

আজ, মঙ্গলবার বিধানসভায় এই প্রসঙ্গ নিয়ে মুলতুবি প্রস্তাব আনে বিজেপির পরিষদীয় দল। কিন্তু স্পিকার বিমান বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন যে এটা ‘রাজ্যের বিষয় নয়’। বিজেপির সেই প্রস্তাব খারিজ করে দেন তিনি। এরপরই বিক্ষোভ দেখান বিজেপি বিধায়করা। বিধানসভা থেকে ওয়াক আউট করেন তারা। সাবিত্রীকে বরখাস্ত করার দাবী তুলেছেন বিজেপি বিধায়করা।

বিধানসভায় এই হট্টগোলের মধ্যেই এদিন নিজের মন্তব্যে অনড় থেকেই সাবিত্রী বলেন, “প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী দেশ চালাচ্ছেন। সেই দেশে রোজ দ্রৌপদীদের বস্ত্রহরণ হচ্ছে। তা হলে ওঁরা কী ভাবে দেশ চালাচ্ছেন”? তিনি আরও বলেন, “আমি যা বলেছি ঠিক বলেছি। দেশে রোজ দ্রৌপদীদের বস্ত্রহরণ করা হচ্ছে। নিশ্চয়ই নরেন্দ্র মোদী ও অমিত শাহ দায়ী। ওঁরা দেখবেন না এটা”।

সাবিত্রী আরও দাবী করেছেন যে স্বাধীনতা আন্দোলনে গুজরাতের কোনও অবদান নেই। তা নিয়েও হয় বিতর্ক। এই প্রসঙ্গে তৃণমূল বিধায়ক বলেন, “গুজরাত থেকে মোদী-শাহ এসেছেন। ওঁদের দলের কোনও ভূমিকা ছিল না। ‘ভারত মাতা কি জয়’ বলার অধিকার ওঁদের নেই। কংগ্রেস ও তৃণমূলের এ কথা বলার অধিকার রয়েছে”।

Related Articles

Back to top button