রাজ্য

‘শুভেন্দু রাগ করিস না ভাই’, বিরোধী দলনেতার কাছে হঠাৎ কেন ক্ষমা চাইলেন তৃণমূলের কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়?

মুকুল রায়কে দিয়ে শুরু। এরপর একে একে রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়, সব্যসাচী দত্ত, বিশ্বজিৎ দাস, নানা দলবদলু নেতারা তৃণমূলে ফিরেছেন। আর এই নিয়ে একেবারেই না-খুশ শ্রীরামপুরের তৃণমূল সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়। তাদের নিয়ে কটাক্ষ করার মাঝেই বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীর কাছে ক্ষমা চাইলেন তিনি। বললেন, শুভেন্দু তৃণমূলে ফিরে এলে, তাঁর চেয়েও বেশি কাছে হয়ে যাবেন। কিন্তু হঠাৎ কেন এমন মন্তব্য সাংসদের গলায়?

গতকাল, মঙ্গলবার শ্রীরামপুরে একটি কালীপুজোর উদ্বোধনে যান তৃণমূল সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়। সেখানে মঞ্চে গানও ধরেন তিনি। গানের মধ্যে দিয়েই তৃণমূলে ঘর ওয়াপসি করা রাজীবকে বিঁধলেন তিনি। সাংসদ গান ধরেন, “আমি সব পারেতেই আছি গাঙের জলে ভাসিয়ে দিয়ে ডিঙা। আমি দুই নদীতেই নাচি, মানে তৃণমূলে নাচছে, বিজেপিতেও নাচছে। একবার চলে যাব মা বলে, একবার চলে যাব মোদীর কাছে। দুই চোখে দুই জলের ধারা মেঘনা-যমুনা। মমতাদি এক কোণে মোদীজি আরেক কোণে”।

পরে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে কল্যাণ বলেন, “রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় ছাড়া আরও অনেকে আছে। দেখতে থাকুন। তৃণমূল থেকে বিজেপিতে যাওয়া নেতারা ফিরে আসবেন”।

এরপর শুভেন্দুকেও কটাক্ষ করতে ছাড়েননি সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়। এর মধ্যে দিয়ে নিজের দলকেও কী পরোক্ষভাবে খোঁচা দিলেন তিনি? কল্যাণের কথায়, “শুভেন্দু রাগ করিস না ভাই। অনেক কথা বলে ফেলেছি। কখন কোনওদিন তুইও চলে আসবি, তার তো কোনও ঠিক নেই। যাদের যাদের সম্বন্ধে সমালোচনা করেছিলাম, তাদের সবাইকে বলছি কেউ রাগ করিস না। তখন তোরা তৃণমূলের বিরুদ্ধে চলে গিয়েছিলি। তাই বলেছিলাম। আবার কবে কোনদিন চলে এসে আমার চেয়ে তৃণমূলের বেশি কাছের হয়ে যাবি”।

প্রসঙ্গত, একুশের নির্বাচনের আগে দল ত্যাগ করা নেতা শুভেন্দু অধিকারী ও রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়কে আক্রমণ শানিয়েছেন তৃণমূলের আইনজীবী সাংসদ। তিনি এও বার্তা দেন যাতে তাদের আর দলে না ফেরানো হয়। একুশের নির্বাচনের পর নানা নেতারা ফিরে এসেছেন তৃণমূলে। প্রত্যাবর্তন করেছেন রাজীবও।

গত রবিবারই ত্রিপুরায় অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের সভামঞ্চে তৃণমূলের পতাকা হাতে তুলে নেন রাজীব। রাজীবের দলবদল নিয়ে আগেও নানান অসন্তোষ প্রকাশ করেছিলেন কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়। আর রাজীবের দলে ফিরে আসার পরও তাঁকে নানাভাবে বিঁধেছেন তিনি।

Related Articles

Back to top button