রাজ্য

ফের উত্তেজনা! ভূপতিনগরে বিস্ফোরণের ঘটনাস্থলে যেতেই বিজেপি কর্মীদের তাড়া করল তৃণমূল, পুলিশের সামনেই চলল মারধর

ফের উত্তেজনা ভূপতিনগরে। গত ৩রা ডিসেম্বর পূর্ব মেদিনীপুরের ভূপতিনগরে ভয়াবহ বিস্ফোরণ হয়। এর জেরে মৃত্যু হয় তৃণমূল বুথ সভাপতি-সহ ২ জনের। সেই ঘটনাস্থলেই আজ, সোমবার বিজেপি কর্মীরা ঢুকতেই তাদের উপর চড়াও হয় তৃণমূল কর্মীরা। বেশ কয়েকজন বিজেপি কর্মীদের মারধর করা হয় বলে অভিযোগ। তৃণমূলের দাবী, বিজেপির দুষ্কৃতীরাই এই বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটিয়েছে। এদিন পুলিশের সামনেই বিজেপি কর্মীদের উপর চড়াও হয় তৃণমূল কর্মীরা।

এই ঘটনাকে ঘিরে এলাকায় তুমুল উত্তেজনা ছড়িয়েছে। ধুন্ধুমার পরিস্থিতি তৈরি হয়। বেশ কয়েকজন বিজেপি কর্মীকে আটক করে গ্রামের বাইরে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে পুলিশ। সেই সময় গাড়ি আটকে দেয় উত্তেজিত তৃণমূল কর্মীরা। পুলিশের সামনেই বিজেপি কর্মীদের উপর চড়াও হওয়ার চেষ্টা করেন তৃণমূল কর্মীরা।

বিজেপির তরফে আগেই অভিযোগ করা হয়েছিল যে তৃণমূল নেতার বাড়িতে বোমা বাঁধার কাজ চলছিল। সেই থেকেই হয়েছিল বিস্ফোরণ। এদিন সেই গ্রামেই গিয়েছিলেন বিজেপি কর্মীরা। কিন্তু তাদের দেখেই চড়াও হয় তৃণমূল কর্মীরা। বাড়ি থেকে বেরিয়ে আসেন মহিলারাও। গ্রামের রাস্তা ধরে দৌড় করানো হয় বিজেপি কর্মীদের।

এই ঘটনার জেরে বিশাল পুলিশ বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে এলাকায়। তবে পরিস্থিতি সামাল দিতে হিমসিম খায় তারাও। বিজেপি বিজেপি কর্মীদের আটক করে নিয়ে যাওয়ার সময় পুলিশের গাড়ির সামনে শুয়ে পড়েন তৃণমূল কর্মীরা। তৃণমূলের সরাসরি অভিযোগ এই বিস্ফোরণের সঙ্গে বিজেপির যোগ রয়েছে।

এদিন সিআইডি টিম এলাকায় গিয়েছিল। সেই সময় এলাকায় পুলিশও  ছিল। সেই সময় এলাকায় কয়েকজন বিজেপি কর্মীও ছিলেন। তাদের দেখেই আচমকাই উত্তেজনা ছড়ায় এলাকায়। তারা পালটা বিজেপি কর্মীদের তাড়া করেন।

বিজেপি নেতৃত্বের দাবী, ঘটনা অন্যদিকে ঘোরানোর জন্য এসব করছে তৃণমূল। তৃণমূল রাজ্য সাধারণ সম্পাদক কুণাল ঘোষ বলেন, “বিজেপি এলাকায় অশান্তি পাকানোর চেষ্টা করছে। মানুষ শান্তি চাইছেন”।

Related Articles

Back to top button