সব খবর সবার আগে।

গল্পের নতুন মোড়! শাঁখা-সিঁদুরের দিব্যি কেটে স্বামীর ঘরেই ফিরলেন বালির দুই গৃহবধূ, রাজমিস্ত্রিদের সঙ্গে থাকতে চান না, স্পষ্ট জানালেন দুই জা

জেল থেকে ছাড়া পাওয়ার পর প্রেমিকাদের খোঁজ করেছিলেন দুই রাজমিস্ত্রি। পরিচিত মাধ্যমে খোঁজ নিয়ে যোগাযোগও করতেও চেয়েছিলেন বালির দুই গৃহবধূর সঙ্গে, কিন্তু পারছিলেন না। এবার গল্পে নিল নতুন মোড়। বালির দুই পলাতক জা-এর ঘটনায় ঘটল নতুন ঘটনা।

জানা গিয়েছে, স্বামীর ঘরে ফিরে গিয়ে দিব্যি সংসার শুরু করে দিয়েছেন রিয়া ও অনন্যা। শাঁখা-সিঁদুরের দিব্যি কেটে সংসারে ফিরে গিয়েছেন তারা। বলেই দিয়েছেন রাজমিস্ত্রিদের কাছে ফিরে যাওয়ার কোনও প্রশ্নই ওঠে না। এদিকে আবার রিয়ার স্বামী পলাশ কর্মকার দাবী করেছেন যে ওই দুই রাজমিস্ত্রি নাকি রিয়া ও অনন্যাকে ফুঁসলিয়ে নিয়ে গিয়েছিল।

রিয়ার স্বামী পলাশ কর্মকার জানান, “ওরা দুজনে সুরক্ষিত জায়গাতেই রয়েছে। এমনকি ওরা ডিভোর্সের কথাও ভাবেনি। আমার বাবা অসুস্থ থাকায় সেই বিষয় নিয়েই ওরা হাসপাতালে দৌড়াদৌড়ি করত। আর রাজমিস্ত্রিদের কাছে ফিরে যাওয়ার কোন প্রশ্নই হয় না বলে জানিয়েছেন তাঁরা”।

তাঁর কথায়, “ওদের কোন দোষ নেই। সব দোষ ওই দুই রাজমিস্ত্রি শুভজিৎ দাস ও শেখর মজুমদারের। ওরা ক্রিমিনাল। আমাদের বাড়ির দুই বউকে ওরা ফুঁসলিয়ে নিয়ে গিয়েছিল। স্ট্যান্ডার্ডও আলাদা ওদের। রিয়া ও অনন্যার কোনমতেই ওদের সঙ্গে জীবন কাটানো উচিত নয়”।

কিছুদিন আগেই জেল থেকে ছাড়া পেয়েছেন ওই দুই রাজমিস্ত্রি শুভজিৎ দাস ও শেখর রায়। জেল থেকে বেরিয়েই তারা বলেছিলেন, “রাজমিস্ত্রি বলে কি আমাদের মন নেই? আমরা কি ভালোবাসতে পারি না? ওদের সঙ্গেই আমরা সংসার করতে চাই”

বলে রাখি, গত ১৫ই ডিসেম্বর শপিং করতে যাওয়ার নাম করে দুই রাজমিস্ত্রির সঙ্গে বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে যান বালির দুই গৃহবধূ। প্রথমে সুতি হয়ে প্রেমিকদের সঙ্গে মুম্বই পালান তারা। কিন্তু টাকাপয়সার ঘাটতি দেখা দিতেই ফের ফিরে আসেন এ রাজ্যে। এরপর ফেরার পথেই আসানসোল স্টেশনে পুলিশের জালে ধরা পড়েন দুই রাজমিস্ত্রি প্রেমিক-সহ দুই জা। কিন্তু এবার সেই রাজমিস্ত্রিদের ছেড়ে ফের নিজেদের সংসারেই ফিরে গেলেন দুই গৃহবধূ।

You might also like
Comments
Loading...