রাজ্য

‘নির্বাচনের সময় এক দিদি এসেছিলেন পশ্চিমবঙ্গ থেকে’, নাম না করেই ভোট পরবর্তী হিংসা নিয়ে মমতাকে বেলাগাম কটাক্ষ যোগী আদিত্যনাথের

উত্তরপ্রদেশের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে বিরোধীদের আক্রমণের মুখে পড়েছেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ (Yogi Adityanath)। এমন আবহে এবার বাংলায় ভোট পরবর্তী হিংসার ঘটনা (post poll violence) নিয়ে মমতা সরকারকে তোপ দাগলেন যোগী।

গতকাল, শুক্রবার বিধানসভায় বাজেট পেশের পর যোগী বাংলায় বিজেপির তোলা অভিযোগের উল্লেখ করে বলেন, “বাংলায় ভোট পরবর্তী সময়ে ১২ হাজার হিংসার ঘটনা ঘটেছে। ২৯৪টি বিধানসভা কেন্দ্রের মধ্যে ১৪২টি কেন্দ্র থেকে এইসব অভিযোগগুলি উঠে এসেছে। বিজেপি কর্মীদের উপর আক্রমণ করা হয়েছে”।

শুধু তাই নয়,  মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নাম না নিয়ে আদিত্যনাথ যোগী উত্তরপ্রদেশে নির্বাচনী প্রচারের সময় রাজ্যে তাঁর সফর নিয়ে খোঁচা দেন। বলেন, “পশ্চিমবঙ্গের একজন ‘দিদি’ নির্বাচনে সমাজবাদী পার্টির সমর্থনে এসেছিলেন। পশ্চিমবঙ্গের জনসংখ্যা উত্তর প্রদেশের অর্ধেক। উত্তরপ্রদেশে কোনো প্রাক-নির্বাচন বা ভোট-পরবর্তী কোনো হিংসার ঘটনা ছিল না। এটি আইনশৃঙ্খলার একটি উদাহরণ”।

যোগীর এই মন্তব্যের পাল্টা কটাক্ষ করেন তৃণমূল সাংসদ সুখেন্দুশেখর রায়। তিনি বলেন, “বিকৃত মানসিকতার পরিচয়। যোগীর রাজ্যে ১০০০ জনের বেশি মানুষেক ভুয়ো এনকাউন্টারে খুন। উত্তরপ্রদেশে প্রতিদিন গণধর্ষণের ঘটনা ঘটছে। কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর ছেলে গাড়ি চালিয়ে নিরীহ কৃষক, সাংবাদিককে খুন করেছে। তিনি আবার বাংলাকে অপমান করছেন”।

অন্যদিকে আবার তৃণমূল মুখপাত্র কুণাল ঘোষ এই বিষয়ে বলেন, “বাংলার উন্নয়নের কাছে দশ গোল খেয়ে মিথ্যাচার করছে বিজেপি। প্রয়াগরাজে কতজনকে পুড়িয়ে মারা হল। পরিবার ধর্ষণের অভিযোগ তুলল। বাংলার চিন্তা না করে আগে সেই দিকগুলো দেখুক ওরা”।

এদিন যোগী আরও বলেন যে ডাবল ইঞ্জিনের সরকারের সাফল্য মেনে নিতে অস্বীকার করছে অখিলেশ যাদবের সরকার। বিজেপির জয়ও অস্বীকার করছে। উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রীর কথায়, “তারা জিতলে সব ঠিক আছে। কিন্তু বিজেপি জিতলে ইভিএমে কিছু ত্রুটি আছে। এটা আসলে মানুষের অপমান”।

Related Articles

Back to top button