সব খবর সবার আগে।

২ বছর ধরে নিখোঁজ ১০ বছরের এক শিশু, একদিন বাবার চোখ পড়ল আলমারিতে তারপর….

একটি ৮ বছরের শিশু একদিন হঠাৎই তার ঘর থেকে উধাও হয়ে যায়। ঘটনায় তার বাবা মা প্রচন্ড ভেঙে পড়ে। কিন্তু হারিয়ে যাওয়ার ২ বছর তার বাবা আলমারির ভিতর থেকে উদ্ধার করলেন তার ছেলের রহস্য। এটি কা’ল্পনিক শুনতে লাগলেও একদম সত্য ঘটনা।

গল্পটি উত্তর আ’মেরিকার একটি পরিবারের।পরিবারের কর্তা ড্যানিয়েল প্রায় বছর চারেক আগে একটি নতুন বাড়ি ভাড়া নেন। সেখানে তিনি তাঁর স্ত্রী’ সারাহ, এবং দুই ছে’লে টম এবং জ্যাকবকে নিয়ে বেশ সুখে স্বাচ্ছন্দেই তাদের দিন কাটচ্চিলেন। কিন্তু এ সুখ তাদের ভাগ্যে বেশি দিন সইল না।

একদিন রাতে নৈশভোজের সময় সারাহ সবাইকে খেতে ডাকেন। সবাই চলে এলেও জ্যাকব তখনও আসেনি। অনেক ডেকে সারা না পেয়ে সারাহ নিজেই ছেলেকে ডাকতে তার ঘরে গেলেন। কিন্তু তিনি ঘরে গিয়ে দেখেন তার ছেলে জ্যাকব ঘরে নেই। সেদিন তন্নতন্ন করে খুঁজেও জ্যাকবকে না ঘরে বা বাইরে কোথাও খুঁজে পাওয়া গেল না।

প্রায় দুই ঘন্টা ধরে খোঁজার পরও যখন জ্যাকবকে পাওয়া গেল না, তখন তার বাবা এবং মা দুজনেই পু’লিশের দ্বারস্থ হলেন। জ্যাকব তখন ৮ বছর বয়সী। পু’লিশও দীর্ঘদিন ধরে জ্যাকবকের খোঁজ চালায় কিন্তু কোনও স’ন্ধান পায় না। ড্যানিয়েল এবং সারাহ তার ছেলের এমন ভাবে চলে যাওয়াটা কিছুতেই মেনে নিতে পারছিলেন না।

প্রায় ২ বছর কেটে গেল ছেলের খোঁজ করতে করতে, কিন্তু জ্যাকবকে খুঁজে পাওয়া যায়নি। একটা সময় সবাই ধরে নিল জ্যাকব আর এই পৃথিবীতে নেই। সারাহ এবং ড্যানিয়েল তখনও বুঝতে পারছিলেন না কী’ভাবে তাদের ছেলে উ’ধাও হতে পারে।

একদিন জ্যাকবের সব স্মৃতিচিহ্ন সরিয়ে ফেলতে ড্যানিয়েল তার ছেলের ঘর পরিষ্কার করতে শুরু করে। এই সময় জ্যাকবের পোশাকের পিছনে তার বাবা কিছু একটা খুঁজে পায়। আলমারির মধ্যে সব জামাকাপড় বার করে ফেলার পর আলমারির পিছনে দেওয়ালের মধ্যে একটি গর্ত দেখতে পেল ড্যানিয়েল। তারপর গর্তটিকে খুঁড়ে আরো বড়ো করেন তার পুত্র জ্যাকবের জুতো খুঁজে পায় সে। জ্যাকবের জুতো দেখে ড্যানিয়েল কাঁ’দতে শুরু করলেন। কিন্তু অদ্ভুত ব্যাপার জুতোর পাশে রয়েছে হা’তুড়ি, ক’রাত এবং একটি চশমা। কিন্ত তার ছেলের চশমা তো এটা নয়। তার হঠাৎ মনে পড়ল চশমাটি তো তার প্রতিবেশীর। এরপর এই বিষয়ে জানতে সে পাশের বাড়ি গিয়ে জো’রে গ’লা চে’পে ধরে তাদের জিজ্ঞাসা করলেন, ‘আমার ছে’লে জ্যাকব কোথায়?’ এরপর প্রতিবেশী একটি ঘরের দিকে ইশারা করে পা’লিয়ে যায় ।ড্যানিয়েল সেই ইশারা অনুসরণ করে যখন ঘরে ঢুকলেন তখন দেখতে পেলেন প্রচুর কমিকসের মাঝে বসে জ্যাকব। বাবাকে সামনে দেখেই সে জড়িয়ে ধরল। ২ বছর পর জ্যাকবকে পেয়ে আত্মহারা এক বাবাও তার ছেলেকে জড়িয়ে ধরে। ততক্ষনে প্রতিবেশী এবং তার স্ত্রী হাওয়া। কিন্তু ড্যানিয়েল ছাড়ার পাত্র নয়। সে সঙ্গে সঙ্গে ফোন করে পুলিশকে। বেশি দূরে যাওয়ার আগে পু’লিশের হাতে ধরা পড়ল যুগল। তাদের প্রতিবেশীর নাম হেক এবং তার স্ত্রী’র নাম ক্যারোলিন। তাদের কোনও সন্তান না থাকায় তারা জ্যাকবকে অ’পহ’রণ করেছিল।

ক্যারোলিন বলেছিলেন যে তিনি সবসময় জ্যাকবকে নিজের সন্তানের মতোই রেখেছিলেন, ওর কোনো অসুবিধা হতে দেয় নি। এমনকি এই দু’বছরই তাঁর জীবনের সেরা বছর। তবে অন্য কারও বাচ্চাকে অ’পহ’রণ করাও অ’পরাধে,ক্যারোলিন এবং হেককে শা’স্তি দেওয়া হয়।

ড্যানিয়েলের কখন তার ছেলের স’ন্ধান পেল তখন তার বয়স ১০। তবে ক্যারোলিন এবং হেকের উভয়ে জা’মিন হয়ে যায় এবং জ্যাকব তাকে একটি চিঠি লিখেছিলেন এবং লিখেছিলেন যে তিনি তার সাথে যা করেছিলেন তা ভু’ল ছিল ঠিকই কিন্তু অন্যায় অত্যাচার করেনি। সন্তানের প্রতি তার ভালবাসার জন্য তিনি তাকে ক্ষমা করছেন। এই চিঠির পরে ক্যারোলিন এবং হেককে জামিন দেওয়া হয় এবং তারা আবার ড্যানিয়েলের প্রতিবেশী হয়ে ওঠে। এখন উভয় পরিবার একসাথেই জ্যাকবের দেখাশোনা করে।

You might also like
Leave a Comment