সব খবর সবার আগে।

করোনার টিকা নেওয়ার কথা ভাবছেন? মাথায় রাখুন এই বিষয়গুলি

করোনার দ্বিতীয় ঢেউ যে হারে গোটা দেশে ছড়িয়ে পড়েছে, এর জেরে তৈরি হয়েছে ভয়াবহ পরিস্থিতি। এই অবস্থায় কেন্দ্রীয় সরকার, রাজ্য সরকার বারবার বলেছেন টিকা নেওয়ার কথা। এই মুহূর্তে কোভিশিল্ড ও কোভ্যাকসিন, এই দুটি তিকায় ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে কেন্দ্র সরকারের পক্ষ থেকে।

এই দুই টিকার ক্ষেত্রেই খুব কম পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা গিয়েছে। এই ধরণের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া অন্যান্য টিকার ক্ষেত্রেও দেখা যায়। আগামী ১লা মে থেকে ১৮ বছরের ঊর্ধ্ব সকলকে টিকা দেওয়া হবে। এর আগে বিশেষজ্ঞদের মতে, টিকা নেওয়ার আগে ও পরে বেশ কিছু বিষয় খেয়াল করা খুব প্রয়োজন।

আরও পড়ুন- রিপোর্ট জানান দিচ্ছে তিনি করোনায় সংক্রমিত, তবুও ভোটের ডিউটিতে হাজির আশা কর্মী, কাঠগড়ায় কমিশন

টিকা নেওয়ার আগে কোন বিষয়গুলি মনে রাখা প্রয়োজন?

১। যদি আপনার কোনও ওষুধ বা ড্রাগে অ্যালার্জি থাকে তবে ডাক্তারকে। সে সম্পর্কে পরিষ্কার তথ্য দিন। আপনার সম্পূর্ণ রক্ত ​​গণনা, সি-ক্রিয়েটিভ প্রোটিন বা ইমিউনোগ্লোবিন-ই লেভেলের পরীক্ষা করে নেওয়া যেতে পারে।

২। যদি আপনার ডায়াবেটিস বা রক্তচাপের সমস্যা থাকে তবে অবশ্যই তা পরীক্ষা করে নেবেন। ক্যান্সার রোগীদের, বিশেষত কেমোথেরাপি করা রোগীদেরও চিকিৎসকদের পরামর্শ নিয়ে এগোনোই শ্রেয়।

৩। টিকা নেওয়ার আগে ভয় পাবেন না। যদি চিকিৎসক কোনও ওষুধ দিয়ে থাকেন তবে সেগুলিও টিকার আগে নেওয়া যেতে পারে। টিকা গ্রহণের আগে চিন্তামুক্ত থাকার চেষ্টা করুন। আপনি যদি খুব বেশি চিন্তিত হয়ে পড়েন, তবে কাউন্সিলিং করিয়ে নিন।

৪। করোনা চিকিৎসার জন্য যারা রক্তের প্লাজমা বা মনোক্লোনাল অ্যান্টিবডি নিয়েছেন বা যারা দেড় মাস আগে সংক্রামিত হয়েছেন তাদের বর্তমানে ভ্যাকসিনটি না নেওয়া র পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। যদি করোনার ভ্যাকসিনের এক ডোজ গ্রহণের পরে কোনও সংক্রমণ ঘটে থাকে তবে দ্বিতীয় ডোজটি কয়েক সপ্তাহের জন্য স্থগিত করুন।

আরও পড়ুন- করোনাতঙ্ক! ঝাঁপ পড়ছে কলকাতার নামী এই বাজারগুলোর, দেখুন তালিকা

টিকা নেওয়ার পর কী কী লক্ষণ দেখা দিতে পারে এবং টিকা নেওয়ার পর কী কী করা উচিত?

১। যদি কোনও টিকা গ্রহণের ক্ষেত্রে কোনও বিপজ্জনক অ্যালার্জির প্রতিক্রিয়া তাত্ক্ষণিকভাবে দেখা যায় তবে তাদের ভ্যাকসিন সেন্টারে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়।

২। টিকা দেওয়ার পরে আপনার ইনজেকশনের জায়গায় ব্যথা, জ্বর বা ক্লান্তির মতো সমস্যা হতে পারে। এক্ষেত্রে প্রচুর পরিমাণে জল পান করুন। পরিচ্ছন্নতার বিষয়ে বিশেষ যত্ন নিন এবং ইনজেকশনের জায়গায় হালকা ভেজা কাপড় লাগান।

৩। ইনজেকশনের জায়গায় ব্যথা বা জ্বর হওয়া খুব সাধারণ লক্ষণ। অতএব, আতঙ্কিত হওয়ার কোনও কারণ নেই। ঠাণ্ডা লাগা বা ক্লান্তির মতো কিছু লক্ষণও সম্ভব, তবে এই লক্ষণগুলি কয়েক দিনের মধ্যেই চলে যায়।

৪। টিকাটি আমাদের প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে বহিরাগত সংক্রমণ শনাক্ত এবং লড়াই করার জন্য শিক্ষা দেয়। টিকা দেওয়ার পরে ভাইরাসের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়তে কয়েক সপ্তাহ লাগে।

৫। টিকা নেওয়ার পরে, পুষ্টিকর খাদ্য গ্রহণ করতে পারেন। আপনার ঘুমের যথেষ্ট প্রয়োজন। কঠোরভাবে অ্যালকোহল এবং ধূমপান এড়িয়ে চলুন।

টিকা দেওয়ার কয়েক দিন পরেও কোনও ব্যক্তি ভাইরাসে সংক্রামিত হতে পারে। সেক্ষেত্রে বুঝতে হবে, সেই ব্যক্তি ভাইরাসের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ ক্ষমতা বিকাশের জন্য পর্যাপ্ত সময় পাননি।

টিকা নেওয়ার পর সুরক্ষা পদ্ধতিগুলি নিতে অবহেলা করবেন না। টিকা নেওয়ার অর্থ এই নয় যে, আপনি মাস্ক ছাড়া ঘুরতে পারেন, বা স্যানিটাইজারের প্রয়োজন নেই। করোনা বিধি সবসময় মেনে চলুন, সুস্থ থাকুন।

You might also like
Comments
Loading...