সব খবর সবার আগে।

শুধু পৃথিবীতে নয়, প্রাণ আছে অন্য গ্রহেও, ভিনগ্রহে প্রাণ না থাকাটাই বিস্ময়কর ঘটনা! বলছেন নাসার বিশিষ্ট বিজ্ঞানীরাই

অনেকেই পৃথিবীতে বসে খবর নিতে চায় মহাকাশের অন্যান্য গ্রহে কি চলছে! মহাকাশের খবর পেতে উৎসাহী ব্যক্তিত্বরা সবথেকে বেশি উৎসাহী হয় ভিনগ্রহে প্রাণ আছে কিনা তা জানতে। তবে সত্যিই কি ভিনগ্রহে প্রাণ আছে? নাকি এটা শুধু কল্পনা? অনেকের মনেই এখনও সন্দেহ রয়েছে।

সারাক্ষণই ভিনগ্রহে প্রাণ খুঁজে চলেছেন গবেষকরা। এক না জানা সত্যের পেছনে ছুটে বেড়াচ্ছেন গবেষকদের দল। তবে কি সত্যিই কোনো কারণ ছাড়া বিশ্বাসের ভিত্তিতে কাজ করে চলেছেন গবেষকরা? এই বিষয়ে নাসা জানালো, ভিনগ্রহে প্রাণ না থাকলেই, সেটা অবাস্তব।

এই গোটা বিষয় নিয়ে নাসার বিশিষ্ট ব্যক্তিদের মতামত, ভিন গ্রহে প্রাণ না থাকলেই সেটা হবে সবচেয়ে বেশি বিস্ময়কর ঘটনা। তাঁদের মতে, আমাদের সৌরমণ্ডলের কোনো না কোনো গ্রহে প্রাণের উদ্ভব ও বিকাশ খুবই স্বাভাবিক একটি ঘটনা। শুধু উদ্ভবই নয় সেই প্রাণ এখনও টিকে থাকতেই পারে কোনো না কোনো গ্রহে। ব্রহ্মাণ্ডের কোনো না কোনো মুলুকে প্রাণ বেড়ে উঠতেই পারে।
বিশিষ্ট জ্যোতির্বিজ্ঞানী ও জনপ্রিয় বিজ্ঞান লেখক কার্ল সাগান নিজের বইতে লিখেছিলেন, “ব্রহ্মাণ্ড এততাই বিশাল যে কল্পনারও অতীত।”

মহাকাশ সম্পর্কিত এই বইতে বিজ্ঞানী লিখেছিলেন, “সাধারণভাবে কোনো সীমা-পরিসীমা নেই। নেই কোনো চৌহদ্দিও। সেই ব্রহ্মাণ্ডে যদি প্রাণ শুধু পৃথিবীতেই থাকে, তা হলে প্রাণ সৃষ্টির জন্য কতটা এলাকা নষ্ট করা হয়েছে, ভাবুন তো? ব্রহ্মান্ডের কেনই বা এত খামখেয়াল হবে, যার ফলে প্রাণ থাকবে শুধুমাত্র একটি গ্রহে! ব্রহ্মান্ডের বিশালত্বের নিরিখে যে পৃথিবী ধূলিকণার চেয়েও ক্ষুদ্র!”

এই বিষয়ে নাসার বিজ্ঞানী লিন্ডসে বলেছেন, “সৌরমন্ডলে হয়েছে প্রাণের অস্তিত্ব।” যাদের মনে এই সন্দেহ রয়েছে যে ভিন গ্রহে কি সত্যিই প্রাণ আছে? তাঁদের সমস্ত ধোঁয়াশা দূর করতে পারে দুই বিশিষ্ট মহিলা বিজ্ঞানীর বক্তব্য। লিন্ডসে হেসের মতে, “সৌরমন্ডলেই রয়েছে প্রাণের অস্তিত্ব এবং তা এখনও টিকে রয়েছে। সেই প্রাণ আমাদের পৃথিবীর চেনা প্রাণীর মতো নাও হতে পারে। কিন্তু অণুজীবের অস্তিত্ব রয়েছে।”

অন্যদিকে মিশেল থ্যালার জানিয়েছেন, “জেমস ওয়েব স্পেস টেলিস্কোপ পাঠানো হচ্ছে মহাকাশে। ভবিষ্যতে যাবতীয় সন্দেহ দূর করে দেবে যে জেডব্লিউএসটি। মূলত সবদিক থেকেই প্রচেষ্টা চালানো হচ্ছে। মানুষের মনের সমস্ত দুশ্চিন্তা দূর করার চেষ্টা করছেন নাসার বিজ্ঞানীরা। তবে তাঁদের বিশ্বাস প্রাণ আছে ভিনগ্রহে। না থাকাটাই বরং অবাস্তব।

You might also like
Comments
Loading...