সব খবর সবার আগে।

ফের দুর্যোগের আশঙ্কা! আর কয়েক ঘণ্টা পরেই গভীর নিম্নচাপের জেরে ভাসতে পারে দক্ষিণবঙ্গ! ভোগান্তি বাড়তে চলেছে জেলাগুলির

একের পর এক দুর্যোগ এসে চলেছে পৃথিবীতে। গত সপ্তাহে একটানা বৃষ্টির কারণে জলমগ্ন ছিল কলকাতা-সহ তার আশপাশের অঞ্চল। এমনকি এখনও মাঝেমধ্যেই মেঘ ঘন হয়ে বৃষ্টি হয়ে চলেছে কিছু কিছু জায়গায়। এরইমধ্যে আবার আবহাওয়া দফতর বলছে, এখনও মেটেনি সমস্যা। ভোগান্তি চলবে আরও বেশ কয়েক দিন। চিন্তা বাড়ছে শহরের জন্য।

গত সপ্তাহের শেষের দিক থেকে মঙ্গলবার পর্যন্ত টানা বৃষ্টি হওয়ার পর, আলিপুর আবহাওয়া দফতর জানিয়েছিল, মায়ানমার সংলগ্ন উপকূলে রয়েছে ঘূর্ণাবর্ত। যা উত্তর-পশ্চিম দিক থেকে এগিয়ে উত্তর-পূর্ব বঙ্গোপসাগরে অবস্থান করবে বলে আশঙ্কা। সূত্রের খবর, আগামী ২৪ ঘণ্টায় সাধারণ নিম্নচাপ আকার ধারণ করতে পারে গভীর নিম্নচাপে। দুর্যোগ বাড়াতে পারে দক্ষিণবঙ্গের।

আলিপুর আবহাওয়া দফতরের সূত্র অনুযায়ী, নিম্নচাপের কারণে শহরের আকাশ মেঘাচ্ছন্ন থাকবে। মাঝে মধ্যেই কয়েক পশলা বৃষ্টিতে ভিজতে পারে মহানগর। তবে সেই বৃষ্টি অতিভারী বৃষ্টিতে পরিণত হবে না। সূত্র মতে, মোটামুটি ৩৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস থেকে ২৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে ঘোরাফেরা করবে তাপমাত্রা। গতকাল সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩১.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস এবং সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ২৫.৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। অন্যদিকে বাতাসে জলীয়বাষ্পের সর্বোচ্চ পরিমাণ ৯৮%। বৃষ্টি হয়েছে ১৭.৩ মিলিমিটার। আবহাওয়া দফতর থেকে জানানো হয়েছে, আরও তিনটি নিম্নচাপ অপেক্ষা করছে। যে কারণে আগামী সপ্তাহ পর্যন্ত চলবে বৃষ্টি।

সমস্ত দিক পর্যবেক্ষণ করে জানা গিয়েছে, শনিবার উত্তর-পূর্ব বঙ্গোপসাগর সংলগ্ন পূর্ব-মধ্য বঙ্গোপসাগরে তৈরি হবে নিম্নচাপ। রবি ও সোমবার দক্ষিণবঙ্গে ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস রয়েছে। বিশেষ করে পশ্চিমের জেলাগুলিতে পড়তে চলেছে বজ্রগর্ভ মেঘের প্রভাব। এর কারণে পশ্চিম মেদিনীপুরের বিভিন্ন অংশ ও ঝারগ্রাম সবচেয়ে বেশি প্রভাবিত হবে। এদিকে মৎস্যজীবীদের জন্য সর্তকতা জারি করা হয়েছে ইতিমধ্যেই।

শুক্রবার বিকেলের মধ্যে সকল মৎস্যজীবীদের ফিরে আসতে বলা হয়েছে নিজ নিজ স্থানে। শনিবার থেকেই তাদের সমুদ্রে যাওয়া নিষেধ করা হয়েছে। ফের আরও একবার জলের তলায় যেতে চলেছে কলকাতা-সহ তার আশপাশের এলাকা। বিপদ বাড়তে চলেছে নগরবাসীর জন্য। তবে কিছুটা বিপদ কম করতে সতর্কবার্তা জারি করেছে আলিপুর আবহাওয়া দফতর।

_taboola.push({mode:'thumbnails-a', container:'taboola-below-article', placement:'below-article', target_type: 'mix'}); window._taboola = window._taboola || []; _taboola.push({mode:'thumbnails-rr', container:'taboola-below-article-second', placement:'below-article-2nd', target_type: 'mix'});
You might also like
Comments
Loading...