অফবিট

স্বামী ও দুই ছেলেকে হারিয়েও রাজনৈতিক ক্ষেত্রে এড়িয়ে যান নি দায়িত্ব, রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থী দ্রৌপদী মুর্মুর জীবন কাহিনী অনুপ্রাণিত করবে দেশের মহিলাদের

তাঁকে হয়ত ঝাড়খণ্ডের প্রাক্তন রাজ্যপাল হিসেবেই এতদিন সকলে চিনে এসেছেন। তবে এবার তাঁর একটা আলাদা পরিচয়ও হয়েছে। আসন্ন রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ জোটের তরফে তাঁকেই রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থী নির্বাচন করা হয়েছে।

হ্যাঁ, ঠিকই ধরেছেন কথা হচ্ছে দ্রৌপদী মুর্মুকে নিয়েই। এবার সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে উঠে এল দ্রৌপদী মুর্মুর জীবনের লড়াইয়ের কাহিনী যা নেটিজেনদের মন ছুঁয়েছে, কার্যত স্তব্ধ করে দিয়েছে সকলকে।

সূত্রের খবর অনুযায়ী, ১৯৯৪ থেকে ১৯৯৭ সাল পর্যন্ত একটি স্কুলে সাম্মানিক সহকারী শিক্ষক হিসেবে কাজ করেছিলেন দ্রৌপদী মুর্মু। এরপর স্থানীয়দের উৎসাহেই তিনি যোগ দেন রাজনীতিতে। কাউন্সিলর হিসেবেই রাজনৈতিক জয়যাত্রা শুরু হয়েছিল তাঁর।

২০০০ থেকে ২০০৪ সাল পর্যন্ত বিজেপির বিধায়ক হিসেবে কাজ করেছেন দ্রৌপদী মুর্মু। ২০০২ থেকে ২০০৯ পর্যন্ত বিজেপির আদিবাসী মোর্চার জাতীয় কর্মসমিতির সদস্য ছিলেন তিনি। এর পাশাপাশি একা হাতেই সামলেছেন বিজেপির নানান সাংগঠনিক পদ ও দায়িত্ব।

রাজনৈতিক জীবনে যখন তাঁর সাফল্য আসে, সেই সময়ই তাঁর ব্যক্তিগত জীবনে নেমে আসে একের পর এক ঝড়। খুব কম সময়ের ব্যবধানে তিনি হারান তাঁর স্বামী ও দুই ছেলেকে। কিন্তু ব্যক্তিগত জীবনে যতই ঝড়ঝাপটা আসুক না কেন, তার কোনও ছায়া কখনও নিজের পেশায় ফেলতে দেন নি দ্রৌপদী মুর্মু।

২০১৫ সালে থেকে ২০২১ সাল পর্যন্ত তাঁকে ঝাড়খণ্ডের রাজ্যপালের দায়িত্ব সামলাতে দেখা গিয়েছে। এবার তাঁকে বিজেপির তরফে করা হয়েছে রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থী। তাঁর মতো মানুষের লড়াই, জীবনে এগিয়ে চলার কাহিনী যে দেশের সমস্ত মহিলাদের অনুপ্রাণিত করবে, তা তো বলাই বাহুল্য।

Related Articles

Back to top button