সব খবর সবার আগে।

আজ বিশ্ব পরিবেশ দিবস! নিজের প্রকৃতিকে সুস্থ রাখতে আজ‌ই এই পদক্ষেপ গুলো নিন-

প্রতিবছর ৫ই জুন পালন করা হয়ে থাকে বিশ্ব পরিবেশ দিবস। মানুষের মধ্যে পরিবেশ রক্ষা নিয়ে সচেতনতা ও নতুন পদক্ষেপ কে স্বাগত জানানোর লক্ষ্যে রাষ্ট্রপুঞ্জের তরফ থেকে এই দিনটির ঘোষণা করা হয়। পরিবেশ নিয়ে সচেতনতা বৃদ্ধির এই চেষ্টা চলছে বহু বছর ধরে।

করোনা অতিমারী পরবর্তী জীবনে পরিবেশের গুরুত্ব যে কতটা তা হয়তো বুঝতে পেরেছে সাধারণ মানুষ। ‌ বর্তমানে ক্রমেই অসুস্থ হয়ে পড়ছে পৃথিবী। আর তাকে অসুস্থ করতে সহায়তা করছে আমার আপনার মতো মানুষ।

কিন্তু আমাদের কয়েকটি সঠিক পদক্ষেপে ফের সুস্থ হয়ে উঠতে পারে পৃথিবী। দেখে নিন মানুষ হিসেবে সমাজকে সুস্থ রাখার জন্য আমাদের হাতে কী কী করণীয় আছে-

১. বিশেষজ্ঞরা বলেন পরিবেশকে সুস্থ রাখতে, কাঠের উনুনের ব্যবহারও কম করাই শ্রেয়। কারণ কাঠের উনুন থেকে অত্যধিক পরিমাণে ধোঁয়া নির্গত হয়। যা বায়ুর সঙ্গে মিশে গিয়ে স্বাস্থ্যের ক্ষতি করতে পারে। তিনসঙ্গী ব্যাপকহারে দূষিত হয় বায়ু। যা হানিকারক সুস্থ-স্বাভাবিক পরিবেশের জন্য।

২. বাস্তুতন্ত্রকে সুস্থ রাখার বিষয়ে বিশেষ খেয়াল দেওয়া উচিত।  গ্লোবাল ওয়ার্মিং ও বায়ু দূষণের কারণে বাস্তুতন্ত্র প্রভাবিত হচ্ছে। প্রভাব পড়ছে গাছপালা, পশুপাখির ওপর। একটি সুস্থ পরিবেশে গাছপালা ও পশুপাখির সঙ্গে বাস্তুতন্ত্রের যোগাযোগ স্থাপন অত্যন্ত প্রয়োজনীয়।

৩. পরিবেশকে সুস্থ রাখার অন্যতম উপায় হচ্ছে ইলেকট্রনিক্স গেজেট বা অ্যাপ্লায়েন্সেস এর ব্যবহার কম করা।  এমন অ্যাপলায়েন্স কিনুন যা পরিবেশবান্ধব হওয়ার পাশাপাশি অধিক পরিমাণে বিদ্যুৎ সাশ্রয় করতে পারে। আবার কাজ শেষ হয়ে গেলে লাইট, পাখা, টিভি, এসির সুইচ বন্ধ করে রাখুন।

৪. গাড়ি থেকে নির্গত ব্যাপক পরিমাণে ধোঁয়া পরিবেশকে অস্বাস্থ্যকর করে তোলে। হয় বায়ু দূষণ। তাই পরিবেশবান্ধব যানবাহন ব্যবহারের পরামর্শ দেন বিশেষজ্ঞরা।

৫. প্লাস্টিক জাতীয় জিনিসের ব্যবহার কমান। পরিবেশের সবচেয়ে বড় শত্রু হলো এই প্লাস্টিক। সেই সঙ্গে জাতীয় জিনিস রিসাইকেল করার চেষ্টা করুন। এগুলো পুনর্ব্যবহারযোগ্য করে তুলতে পারলে পরিবেশগত ক্ষয়ক্ষতি অনেকটা এড়ানো যাবে। সেই সঙ্গে যত্রতত্র ময়লা ফেলা বন্ধ করুন। পরিবেশগত ক্ষতিগ্রস্ত হবে ততই বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবে মানব সমাজ।

৬. পরিবেশকে ভালো রাখতে, এবং নিজেদের ভালো থাকতে বেশি করে সবুজ লাগান। চেষ্টা করুন যতটা বেশি সম্ভব গাছ লাগানো যায়। সবুজে ভরান নিজের বাড়িকে।

নিজে ভালোভাবে বাঁচতে গেলে  পরিবেশকে ভালো রাখতেই হবে। তাই আজ বিশ্ব পরিবেশ দিবসে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হন এবার থেকে সমাজের দায়িত্ব আপনিও নেবেন কিছুটা। ছোট ছোট পদক্ষেপেই গড়ে উঠবে সুন্দর সুস্থ সমাজ।

Comments
Loading...