সব খবর সবার আগে।

২০০৩-এ ভারতীয় ফুটবল থেকে অবসরপ্রাপ্ত বিজয়ন কি এবার ভূষিত হতে চলেছেন পদ্মশ্রী পুরস্কারে?

২০২০ সালে পদ্মশ্রী পুরস্কারের জন্য মনোনীত হলেন প্রাক্তন ফুটবলার আই এম বিজয়নের (IM Vijayan)। ২০০৩ সালে খেলা থেকে অবসর নিয়েছিলেন তিনি। এবছর পদ্মশ্রী পুরস্কারের জন্য সর্বভারতীয় ফুটবল ফেডারেশন (AIFF)-এর তরফ থেকে কেন্দ্রীয় ক্রীড়া মন্ত্রকের কাছে তাঁর নাম প্রস্তাব করা হতে পারে বলে কেন্দ্রের সূত্রের খবর।

২০০৩ সালে অবসর নেওয়ার বছরে অর্জুন পুরস্কারে পুরস্কৃত হয়েছিলেন বিজয়ন। ৫১ বছরের এই প্রাক্তন ভারত অধিনায়ক তিনবার AIFF-এর বর্ষসেরা ফুটবলার হয়েছেন। দেশের সব নামজাদা ফুটবলারদের মধ্যে একজন অন্যতম ফুটবল প্রতিভা হলেন বিজয়ন।

দেশের হয়ে ৭৯টি ম্যাচ খেলেছেন আই এম বিজয়ন। ১৯৯২ থেকে ২০০৩ পর্যন্ত তার গোটা ফুটবল ক্যারিয়ারে এক অত্যন্ত জনপ্রিয় নাম ছিলেন তিনি। আন্তর্জাতিক ম্যাচেও তার দুর্দান্ত প্রদর্শনীতে মুগ্ধ হত সমস্ত দর্শক। আন্তর্জাতিক ম্যাচে মোট ৪০টি গোল করেছেন কেরালার এই ফুটবলার। বিজয়ন-ভাইচুং জুটি একসময় ভারতীয় ফুটবলের বহু ম্যাচ জিতিয়ে ছিল। যার মধ্যে অন্যতম ১৯৯৯ এ দক্ষিণ এশিয়ান ফুটবল ফেডারেশন কাপ। ওই টুর্নামেন্টে ভুটানের বিরুদ্ধে মাত্র ১২ সেকেন্ডে তিনি প্রথম গোলটি করেছিলেন, যা আজও আন্তর্জাতিক ফুটবলের দ্রুততম গোলগুলির মধ্যে অন্যতম। এছাড়াও ২০০৩ সালে ভারতে আয়োজিত অ্যাফ্রো-এশিয়ান গেমসে সর্বোচ্চ ৪টি গোল করেছিলেন আই এম বিজয়ন। আবার ঠিক ওই বছরই সব ধরনের ফুটবল থেকে অবসর ঘোষণা করেন তিনি।

প্রথমের দিকে কেরালা পুলিশের হয়ে ক্লাব ফুটবলে খেলা শুরু করলেও মোহনবাগান ও ইস্টবেঙ্গলের হয়েও খেলেছিলেন বিজয়ন।

তবে ফুটবল থেকে অবসর নিয়ে তিনি চলে যান সিনে-জগতে। মালয়ালম ও তামিল সিনেমায় তিনি অভিনয়ের দক্ষতা প্রমান করেন। প্রায় ২০টিরও বেশি সিনেমায় অভিনয় করেছেন আই এম বিজয়ন। ২০১৯ সালের পদ্মশ্রী বিজেতা ও ভারত অধিনায়ক সুনীল ছেত্রী সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে বলেছিলেন, ‘বিজয়নের সঙ্গে কোনোদিন খেলতে পারলে আমি খুব খুশি হতাম।’ প্রসঙ্গত, ভারতরত্ন, পদ্মবিভূষণ এবং পদ্মভূষণের পর চতুর্থ সর্বোচ্চ ভারতীয় নাগরিক সম্মান হল পদ্মশ্রী।

You might also like
Leave a Comment