সব খবর সবার আগে।

অবশেষে শাপমোচন, কোপা আমেরিকা জিতল ‘মেসি’ র আর্জেন্টিনা!

বাংলায় একটি কথা ভীষণ ভাবে প্রচলিত, ভগবান সর্বদা সাহসীদের পাশে থাকে। অতীতের ইতিহাস, একটানা পরাজয়ে হতাশা কিংবা ফাইনালে উঠেও ট্রফি হাতছাড়া সব মিলিয়ে আর্জেন্টাইন সমর্থকদের অতীতের অন্ধকার কিছুতেই পিছু ছারছিল না। পাশাপাশি একটা ধারণা তৈরি হয়, মেসি ইন্টারন্যাশনাল কোনো ট্রফি জিততে পারেনি। অবশেষে সব কিছুর জবাব দিলেন এল এম টেন। ১৯৯৩ সালে শেষ বার সাম্বা দের হারিয়ে ট্রফি জিতেছিল আর্জেন্টিনা।এরপরেই অতীতের সকল অন্ধকার দূরে ঠেলে আলোর পথে অ্যাঞ্জেল ডি মারিয়ার একটি চিপ শট, কোপা আমেরিকা জিতলো আর্জেন্টিনা। খেলার ফলাফল ১-০।

সেমিফাইনাল ম্যাচে পেনাল্টি বাঁচিয়ে নিজের জাত চিনিয়েছেন এমি মার্টিনেজ। ফের আজকে আরো একবার বুঝিয়ে দিলেন নিজের দক্ষতা। ৮৭ মিনিটে গ্র্যাবিয়েল বারবোসার দুরন্ত শট পয়েন্ট ব্ল্যাঙ্ক থেকে রুখে দিয়ে নিজেকে আরো একবার প্রমাণ করলেন।

টুর্নামেন্টের শুরু থেকেই নিজেকে মেলে ধরেন মেসি। কোপা জেতাতে দেশের জন্য একেবারে বদ্ধ পরিকর ছিলেন।সারা টুর্নামেন্টে চারটি গোল, পাঁচটি অ্যাসিস্ট করেছেন, সতীর্থদের সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন। ফাইনাল ম্যাচে গোল না পেলেও অনবদ্য ফুটবল উপহার দিলেন মেসি।

আর্জেন্টিনা ফুটবল দলে মেসির পর অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ফুটবলার ডি মারিয়া। তার দুরন্ত চিপ শটে সেলেকাওদের স্বপ্ন হাতছাড়া হয়। ব্রাজিলের আক্রমনের সামনে একা বাঁধা হয়ে দাড়ান গোলরক্ষক এমি মার্টিনেজ। গত মরশুমে আর্সেনাল এ যোগ দিয়েছেন তিনি। গোটা ম্যাচে রিচার্লিসন তাকে কাটিয়ে বল গোলে জড়ালেও অফসাইডের জন্য বাতিল হয়। বারবোসার দুরন্ত শট রুখে দিয়ে ব্রাজিলের সামনে পাঁচিল হয়ে দাড়ায় এমি।

দীর্ঘ অপেক্ষার পর নীল সাদা জার্সি গায়ে দেশের জন্য খেতাব জিতলেন মেসি। দেশের জন্য ট্রফি না পাওয়ার ব্যর্থতার শাপমোচন ঘটলো অবশেষে।

_taboola.push({mode:'thumbnails-a', container:'taboola-below-article', placement:'below-article', target_type: 'mix'}); window._taboola = window._taboola || []; _taboola.push({mode:'thumbnails-rr', container:'taboola-below-article-second', placement:'below-article-2nd', target_type: 'mix'});
You might also like
Comments
Loading...